| |

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন তারই একটি পদক্ষেপ হল এই ডিজিটাল মেলা।

রঞ্জন মজুমদার শিবু : প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগ্রামের সহায়তায় এবং ময়মনসিংহ বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ের উদ্যোগে গতকাল শনিবার (১১ মার্চ) সকালে টাউন হল প্রাঙ্গন থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালী ও আলোচনা সভার মধ্য দিয়ে তিনদিন ব্যাপী বিভাগীয় ডিজিটাল উদ্ভাবনী ও জেলা ব্র্যান্ডিং  মেলা শুরু হয়েছে। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী প্রধান অতিথি হিসেবে আনুষ্ঠানিক ভাবে মেলার উদ্বোধন করেন। তিনি বলেন বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ার জন্য আমরা কাজ করে যা”িছ। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ভিশন ২০২১ ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার যে স্বপ্ন তারই একটি পদক্ষেপ হল এই ডিজিটাল মেলা। তিনি আরও বলেন আজকের শিশুরাই হবে আগামী দিনের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার কারিগর। তাই ডিজিটাল বাংলাদেশ বির্নিমানে নতুন প্রজন্মের যুব সমাজকে আরও বেশী করে কাজে সম্পৃক্ত করতে হবে।র‌্যালীটি টাউন হল প্রাঙ্গন থেকে শুরু হয়ে বিভাগীয় শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গনে গিয়ে শেষ হয় । র‌্যালীতে বিভাগীয় পর্যায়ের কর্মকর্তা,পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তা, ময়মনসিংহ, জামালপুর, শেরপুর ও নেত্রকোনা জেলার জেলা প্রশাসক ও উপজেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা, ¯’ানীয় জনপ্রতিনিধি,রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ, শিক্ষক, সাংবাদিক,বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ছাড়াও বিপুল সংখ্যক বিভিন্ন পেশা ও শ্রেনীর মানুষ অংশ গ্রহন করেন। র‌্যালী শেষে জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গনে বিভাগীয় কমিশনার জি এম সালেহ উদ্দিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন।স্বাগত বক্তব্য রাখেন অতি: বিভাগীয় কমিশনার মো: মোজাম্মেল হক। বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন ময়মনসিংহ রেঞ্জ ডিআইজি চৌধুরী আব্দুল্লাহ আল মামুন, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান,জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্বদ্যিালযের উপাচার্য প্রফেসর ড. মুহিত উল আলম।আরও বক্তব্য াখেন জামালপু জেলা প্রশাসক মো: শাহাবুদ্দিন, ভালুকা উপজেলা চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা, মুকুল নিকেতন উ”চ বিদ্যালযের রেক্টর আমি আহমেদ চৌধুরী রতন। ধন্যবাদ জানিয়ে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মো: খলিলু রহমান। আলোচনা শেষে ভিবিন্ন ক্যাটাগরিতে বিভাগীয় কমিশনার সম্মাননা প্রদান করা হয়। সবশেষে প্রধান অতিথি অন্যান্য অতিথিদের সাথে নিয়ে মেলার বিভিন্ন ষ্টল ঘুরে দেখেন। মেলায় বিভিন্ন দপ্তরের ৩৬টি ষ্টল খোলা হয়েছে।