| |

কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ে ৮ দিনব্যাপি নাট্যোতসব সমাপ্ত

রফিকুল ইসলাম শামীমঃ ময়মনসিংহের ত্রিশালে অবস্থিত জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যকলা ও পরিবেশনা বিদ্যা বিভাগের আয়োজনে অনুষ্ঠিত ৮ দিন ব্যাপী ২য় নাট্যোৎসব   বুধবার শেষ হয়েছে। উৎসাহ উদ্দীপনা ও উৎসবের আমেজে এবছর নাট্য উৎসবে  নাট্য নির্দেশনা কোর্সের আওতায় কোর্স শিক্ষক রুহুল আমিনের তত্ত্বাবধানে নাট্যকলা বিভাগের ¯œাতক চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের নির্দেশনায় ৮ দিন ব্যাপী নাট্য উৎসবে হেনরিক ইবসেন, ,মোহিত চট্যোপাধ্যায়, মমতাজ উদ্দিন আহমেদ,আব্দুল্লাহ আল মামুন,সেলিম আল দীন,ব্রাত্য বসু,ইউকিও মিশিমা,মলিয়ের,জাঁ পল সার্ত, টেনিস উইলিয়াম,বুদ্বদেব বসু,কাজী নজরুল ইসলাম,রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর, হারুন অর রশিদ,মান্নান হীরাসহ দেশ বিদেশের বিখ্যাত নাট্যকারদের ২৪ টি নাটক মঞ্চায়ন করে।
বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা ভবনের স্টুডিও থিয়েটারে গত ৮ই মার্চ ৮ দিনব্যাপি এ নাট্য উৎসবের উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মোহীত উল আলম। উদ্বোধনী দিনে হেনরিক ইবসেন রচিত এ ডলস হাউজ, মোহিত চট্যোপাধ্যায় রচিত সোনার তরী, মমতাজ উদ্দিন আহমেদ রচিত নাটক দ্বিধা পরিবেশিত হয়। এরপর ব্রাত্য বসুর চতুস্কোন, ইউকিও মিশিমার লেডি আওই, বুদ্ধবেদ বসুর প্রথম পার্থ, কাজী নজরুল ইসলামের বিদ্যাপতি, হারুন অর রশীদের পঞ্চনারী আখ্যান, মান্নান হীরার বৌ ও মেহেরজান, মোহীত চট্রোপাধ্যায়ের বাজপাখী, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ডাকঘর, জ্যাঁ পল সার্তের নো এক্সিট, টেনিসো উইলিয়ামের ফিনিক্স, উজ্জল চট্রোপাধ্যায়ের জীবস্মৃতের যুক্তিপ্রকল্প, মলিয়ের ভদ্দরনোক, মোহীত চট্রোপাধ্যায় বাইরের দরজা, ব্রাত্য বসুর ফোর্থ বেল, মমতাজ উদ্দিন আহমেদের এই রোদ এই বৃষ্টি, আব্দুল্লাহ আল মামুনের এখনও ক্রীতদাস, বুদ্ধদেব বসুর কলকাতার ইলেকট্রা, মোহীত চট্রোপধ্যায়ের লাঠি, সেলিম আল দীনের লাঠি ও সংগৃহিত সেরেনজিং পালাসহ ২৪ টি নাটক পরিবেশনার মাধ্যমে নাট্য উৎসব শেষ হয়।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর রচিত ডাকঘর নাটকের নির্দেশক মারুফা জাহান বলেন আমার শ্রদ্বেয় শিক্ষক রুহুল আমিন স্যারের সার্বিক তত্ত্বাবধানে আমার শিক্ষা জীবনের প্রথম নাটকের নির্দেশনাটি আমার সবটুকু মেধা দিয়ে উপস্থাপন করতে চেষ্টা করেছি। নাট্য উৎসবে আমাদের বিভাগের শিক্ষকদের অক্লান্ত পরিশ্রমে আমরা শিক্ষার্থীরা বিভিন্ন বিখ্যাত গুনী রচয়িতাদের নাটক পরিবেশন করছি। এই নাট্য উৎসবে আমাদের শিক্ষার্থীরা একদিকে যেমন তাদের একাডেমিক সফলতা পাবে পাশাপাশি দেশ বিদেশের বিখ্যাত সব রচয়িতাদের সম্পর্কে কিছুটা হলেও অভিজ্ঞতা অর্জন করেছে।
মোহীত চট্রোপধ্যায়ের লাঠি নাটকের নির্দেশক পার্থ সারথী মজুমদার বলেন, নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাৎসরিক নাট্য উৎসব আমাদেরকে প্রেরনা যোগায়।
নাট্যকলা বিভাগের  সহকারি অধ্যাপক রুহুল আমীন জানান, আমরা নাট্য উৎসবের মাধ্যমে শিক্ষার্থী একাডেমিক বিষযটাকেই গুরুত্ব দিয়েছি বেশী। এই নাট্য উৎসবের নাট্য নির্দেশক ও কলা কৌশলী সবাই নিজের অবস্থান থেকে সর্বোচ্চ ভাল করার চেষ্টা করেছে। প্রতিটা শিক্ষার্থী নাটক নির্দেশনার মাধ্যমে তাদের মেধার স্বাক্ষর রেখেছে। থিয়েটার এন্ড পারফরম্যান্স ষ্টাডিজ বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ইসমত আরা ভুইয়া ইলা বলেন- প্রতি বছরের ন্যায় এবারেও উৎসবমূখর পরিবেশে নাট্য উৎসবটি অনুষ্ঠিত হলো। শিক্ষার্থীরা সব ঠিকঠাক ভাবেই তাদের নির্দেশনায় বিভিন্ন নাটক মঞ্চায়ন করতে পেরেছে বলে আমি মনে করি।