| |

সপ্তমীতে মন্ডপে মন্ডপে দর্শনার্থীদের ঢল ॥ আজ মহাষ্টমী ও কুমারী পূজা

শারদীয় দুর্গোৎসবের আজ মহা অষ্টমী। গতকাল ছিল মহাসপ্তমী। প্রতিটি মন্দিরে ঢাক-ঢোলের বাদ্য বাজনা, পূজা-আরতী, শ্রীশ্রী চন্ডীপাঠের মাধ্যমে মহাসপ্তমী পূজা সম্পন্ন হয়েছে। ধুপের সুগন্ধি ধোয়া, প্রদীপের আলো শাখা-ঘণ্টার ধ্বনি, পূজারীর মন্ত্র উচ্চারণ পবিত্রতার প্রশান্তির পরশ দোলা দেয় মনে প্রাণে। প্রতিমা দর্শন আর শ্রদ্ধা ও শক্তি সঞ্চয়ে ভরপুর সর্বত্র পূজা মন্ডপগুলো। গতকাল সপ্তমী পূজোতে মন্দিরে মন্দিরে ভক্ত ও দর্শনার্থীদের প্রচন্ড ভীড় লক্ষ্য করা যায়। হিন্দু ধর্মাবলমীদের পাশা পাশি নানা ধর্ম বর্ণের মানুষ দল বেঁধে পূজো দেখতে আসেন। সন্ধ্যার পর আলোর বন্যা বয়ে চলেছে প্রতিটি মন্ডপ প্রাঙ্গণ। সপ্তমীতে মন্ডপে মন্ডপে ছিল দর্শনাথীদের ঢল। ময়মনসিংহ শহরের অলকা নদী বাংলাদেশে একমাত্র মহিলাদের ধারা পরিচালিত শিববাড়ী পূজা মন্ডপ, আঠারবাড়ী বিল্ডিং, গোলপুকুর পাড়, মৃত্যুঞ্চয় স্কুল রোড, দুর্গাবাড়ী, দশভূজা বাড়ী, বড়কালী বাড়ী, ছোট কালীবাড়ী, ভাতৃসংঘ, কবরখানা রোড, মেছুয়া বাজার, জাদব লাহেড়ী লেন, ডাইলপট্রি, জিলপি পট্রি, হিন্দু ধর্মশালা, স্বদেশী বাজার, পুরাতন পুলিশ ক্লাব, পুরুহিত পাড়া, গঙ্গাদাস গুহ রোড, প্রভু জগৎবন্দু আশ্রম, শ্রীশ্রী লোকনাথ মন্দির, দাসপাড়া, কালী বাড়ী বাইলেন, রঘুনাথজিউর আখরা, ছোট বাজার, বড় বাজার, বিশ্বনাথ মন্দির, নটকঘর লেন, হরিজন পল্লী, এসমস্ত পূজা মন্ডপগুলো আকর্ষণীয় করে সাজানো হয়েছে। গতকাল সপ্তমী পূজা শেষে মন্দিরে মন্দিরে অঞ্জলি প্রদান, প্রসাদ বিতরণ এবং সন্ধ্যার পর দর্শনার্থীদের বিপুল জনসমাগম লক্ষনীয়। সন্ধ্যায় আলোকসজ্জা ও কোন কোন মন্ডপে আরতি প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। অপর দিকে প্রতি বছরের ন্যায় আজ ঢাকায় ঢাকেশ্বরী মন্দির ও রামকৃষ্ণ মঠে কুমারী পূজা অনুষ্ঠিত হবে। এবছর ময়মনসিংহ জেলায় ৭০৫টি পূজাসহ সাবা দেশে ২৯ হাজার ৭৪ টিরও বেশী দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। ময়মনসিংহ জেলায় গত বছরের চেয়ে ২৫ টির বেশী পূজামন্ডপে দূর্গা পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উৎসব মুখর বাঙ্গালী মেতে উঠেছে আনন্দ উৎসবে।