| |

ধর্মপাশায় কৃষি, মৎস্য ও প্রাণি সম্পদ দপ্তরে ক্ষতির পরিমাণ ৩৬৪কোটি ৪০লাখ টাকা

ধর্মপাশা প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় হাওরের বোরো ফসলডুবির কারণে কৃষি, ধান গাছ পঁচে পানিতে মাছ মরে ভেসে উঠায় মৎস্য ও অকাল বন্যায় গোখাদ্য এবং বিষাক্ত পানিতে মরা মাছ খেয়ে হাঁস ও রোগবালাইয়ে গবাদি প্রাণি সহ ক্ষয়ক্ষতি নিরুপন করা হয়েছে ৩৬৪কোটি টাকা ৪০লাখ টাকা।   গতকাল সোমবার বিকেল পাঁচটার দিকে উপজেলা পরিষদ হলরুমে উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক আয়োজিত দুর্যোগ মোকাবেলা সংক্রান্ত মতবিনিময় সভায় উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শোয়েব আহমেদ,উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডা.আব্দুর রহিম মিয়্ াও সহকারী উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো.আশরাফুল ইসলাম নিজ নিজ দপ্তরের ক্ষতির পরিমাণ উপস্থাপন করেন । এতে হাওরের ফসল ডুবিতে ক্ষতির পরিমান নির্ধারণ করা হয়েছে ৩৫১কোটি টাকা, গোখাদ্য , হাঁসের ডিম  উৎপাদন বাবদ হাঁসের খামারীদের ক্ষতি, হাঁস ও গবাদি প্রাণির  মৃত্যুসহ ক্ষতির পরিমান নির্ধারণ করা হয়েছে ১৩কোটি টাকা, ধান গাছ পঁচে হাওরের পানি দূষিত হওয়ায় ১০মেট্রিক টন মাছ ও রেনু পোনা বিনষ্ট হওয়ায়ং ক্ষতির পরিমান নির্ধারণ করা হয়েছে ৪০লাখ টাকা। মতবিনিময় সভায় বক্তারা এই উপজেলায় ক্ষতিগ্রস্ত মানুষ, প্রাণি সম্পদ ও মৎস্য সম্পদ রক্ষার জন্য  কী কী করনীয় তা তুলে ধরেন। পাশাপাশি সরকারের পক্ষ থেকে কী কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে তা তুলে ধরেন উপজেরা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মো.মামুন খন্দকার। মতবিনিময় সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আব্দুল মোতালিব খান, উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মোসাহিদ তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মনীন্দ্র চন্দ্র তালুকদার, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস, সেলবরষ ইউপি চেযারম্যান মো.নূর হোসেন, পাইকুরাটি ইউপি চেয়ারম্যান মো.ফেরদ্যৌসুর রহমান, চামরদানী ইউপি চেয়ারম্যান জাকিরুল আজাদ মান্না, শিশু কিশোর সংগঠক ও সাংবাদিক সালেহ আহমদ, ধর্মপাশা প্রেস ক্লাবের সভাপতি এনামুল হক এনাম, সাধারণ সম্পাদক সাজিদুল হক সাজু, উ;দীচ’ী শিল্পী গোষ্ঠী ধর্মপাশা উপজেলা শাখা সংসদের সভাপতি চয়ন কান্তি দাস, সাধারণ সম্পাদক এনামুল হক এনি, সাংবাদিক জুবায়ের পাশা হিমু ,সৈয়দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ঝিনুক শঙ্ক দীপু, ১নং মডেল সরকারি প্র্থামিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক শাহজাহান কবীর প্রমুখ।