| |

ভ্রাম্যমান গাড়ীতে আইিসিটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র

মুক্তাগাছা  : টেকসই নারী উন্নয়নে আইসিটি এ শ্লোগানকে সামনে এনে তথ্য,যোগাযোগ ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে সারাদেশে চলছে ভ্রাম্যমান গাড়ীতে আইসিটি প্রশিক্ষণ কেন্দ্র। এর ধারাবাহিকতায় বৃহস্পতিবার থেকে চলছে মুক্তাগাছায় ভ্রাম্যমান গাড়ীতে আইসিটি প্রশিক্ষণ। গতকাল বুধবার শেষ হয় সাতদিনের প্রশিক্ষণ ক্যাম্প। সমাপনীতে প্রশিক্ষণার্থীদের উদ্দেশ্যে বক্তব্য রাখেন মুক্তাগাছার ইউএনও জুলকার নায়ন। প্রতি ব্যাচে ১৬ জন নারী শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণে অংশ নেয়। শহরের আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন উচ্চ বিদ্যালয় ও হামিদা সুলতানা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের ৪৮ জন শিক্ষার্থী প্রশিক্ষণ নেয়। তাদের প্রশিক্ষণ দেন তথ্য,যোগাযোগ ও প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মুক্তাগাছা উপজেলার সহকারী প্রোগ্রামার অফিসার মাহমুদা আক্তার। ঝকঝকে ও শিতাতপ নিয়ন্ত্রিত ভ্রাম্যমান গাড়ীতে রয়েছে ১৬টি ল্যাপটপ,১৬টি চেয়ার,১৬টি ল্যাপটপ টেবিল ও প্রশিক্ষকের জন্য ল্যাপটপের বড় মনিটর। গাড়ীর ভেতরে গেলে বুঝার উপায় নেই এটি গাড়ী না অন্য কিছু,মনে হবে শিতাতপ নিয়ন্ত্রিত কোন কক্ষে প্রশিক্ষণ দিচ্ছে শিক্ষার্থীরা। ওই ভ্রাম্যমান গাড়ীতে তাদের শেখানো হচ্ছে কিভাবে ইন্টারনেটে ঢুকতে হয়,কিভাবে মেইল পাঠানো যায়,কিভাবে অন্যান্য অফশনে ঢুকে সহজেই কাজ করা যায় এ সব। ভ্রাম্যমান গাড়ীতে নারী শিক্ষার্থীরা আইসিটিতে অংশ নিতে পেরে তারা বেশ খুশি।
স্থানীয় আরকে হাই স্কুলের খেলার মাঠে ভ্রাম্যমান গাড়ীতে প্রশিক্ষণে আসা হামিদা সুলতানা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেনীর শিক্ষার্থী রহিমা আক্তার ও তানজিনা আক্তার বলেন,দুই ঘন্টার প্রশিক্ষণে ইন্টারনেট সংযোগসহ অনেক কিছু শিখতে পেরেছি। এ ধরণের প্রশিক্ষণে আসায় আমরা বেশ খুশি। তবে মাস ব্যাপি প্রশিক্ষণ দিতে পারলে পরিপূর্ন প্রশিক্ষণ নেওয়া যেত।
মুক্তাগাছার ই্উএনও জুলকার নায়ন বলেন,কয়েকদিন ধরে ভ্রাম্যমান গাড়ীতে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীদের বিনামূল্যে ল্যাপটপ চালানো শিখেছে। আমরা চেষ্টা করছি এ প্রশিক্ষণ কিভাবে আরো বাড়ানো যায়।