| |

নান্দাইলে ভূয়া মুক্তিযোদ্ধার বিবাহিত পুত্রের পুলিশে চাকুরি বাতিলের দাবী

নান্দাইল  প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মোয়াজ্জেমপুর ইউনিয়নের কুতুবপুর গ্রামের ভূয়া মুক্তিযোদ্ধা শামছুল ইসলামের পুত্র বিবাহিত যুবক মোঃ সাইফুদ্দিনের ময়মনসিংহ পুলিশ বিভাগের কন্সস্টেবল পদে চাকরি হওয়ায় এলাকার মুক্তিযোদ্ধাদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। শামছুল ইসলাম প্রকৃতপক্ষে কোন মুক্তিযোদ্ধা নয়। তার পুত্র সাইফুদ্দিন মুক্তিযোদ্ধের জাল সনদ তৈরী করে পুলিশে চাকুরি নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এছাড়া উক্ত যুবক কেন্দুয়া উপজেলার সান্দিকোনা ইউনিয়নের সাহিতপুর গ্রামের মোঃ আব্দুল খালেকের কন্যাকে প্রায় ২ বছর আগে বিয়ে করে সংসার যাপন করে যাচ্ছে। ২০১৬ সনে প্রথমে পুলিশে তার চাকরির তালিকাভূক্ত হয়। পরে পুলিশি তদন্তে জালিয়াতি প্রমাণিত হওয়ায় তার প্রার্থীতা বাতিল হয়। ২০১৭ সনে পুনরায় পুলিশ কন্সস্টেবল পদে তালিকা ভূক্ত হয়। নান্দাইল মডেল থানা থেকে নিয়োগের পূর্বে পুলিশি তদন্তে সাব ইন্সপেক্টর সাফায়েত হোসেন তদন্ত রিপোর্টে সে চাতুরির অযোগ্য বলে প্রতিবেদন দাখিল করার পরেও অজ্ঞাত কারনে গত ২রা জুলাই ২০১৭ তাকে পুলিশ বিভাগে নিয়োগ পত্র প্রদান করা হয়েছে। বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হলে স্থানীয় মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সন্তানদের মাঝে বিরুপ প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। উল্লেখ্য কোন বিবাহিত ব্যক্তির/যুবকের পুলিশে চাকুরিতে যোগদান করার কোন সুযোগ নেই বলে নিয়মে উল্লেখ আছে। উক্ত বিষয়ে ৫ই জুলাই মুক্তিযোদ্ধা সন্তানদের পক্ষ থেকে পুলিশের মাননীয় মহা পরিদর্শক, স্বরাষ্ট্র সচিব, মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সচিব, বিভাগীয় কমিশনার ময়মনসিংহ ও ডিআইজি মহোদয় ময়মনসিংহ সহ স্থানীয় প্রেসক্লাবে অভিযোগের কপি প্রেরণ করা হয়েছে। নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ সরদার মোঃ ইউনুছ আলী এই প্রতিনিধিকে জানান বিভিন্ন সংস্থা থেকে কাগজ পত্র যাচাই বাচাই করা হচ্ছে। ভূয়া প্রমাণিত হলে ট্রেনিং সময়েও চাকরি চলে যাবার সম্ভাবনা রয়েছে।