| |

ইসলামপুরে বন্যার পরিস্থিতি অবনতি ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠনের পাঠদান বন্ধ ঘোষনা

ইসলামপুর প্রতিনিধি ঃ ইসলামপুরে বন্যা পরিস্থিতি অবনতি হয়েছে। উপজেলা সাতটি ইউনিয়ন প্লাবিত হয়ে ১৫হাজার মানুষ পানিবন্দি হয়ে পড়েছে। ২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাঠদান বন্ধ ঘোষনা করেছে শিক্ষা অফিস। শনিবার  যমুনা নদীর পানি বাহাদুরাবাদ ঘাট পয়েন্টে গত ২৪ঘন্টায় বৃদ্ধি পেয়ে বিপদ সীমার ৩৬ সেন্টি মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। যমুনার পানিবৃদ্ধি অব্যাহত থাকায় যমুনা ও ব্রহ্মপুত্র নদের অববাহিকা ইসলামপুর উপজেলার পাথর্শী কুলকান্দি, বেলগাছা, চিনাডুলী, নোয়ারপাড়া, ইসলামপুর সদর, ইসলামপুর পৌরসভার একাংশ বন্যার প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকায় প্ল­াবিত হয়ে প্রায় পনেরহাজার লোক পানি বন্দি হয়ে পড়েছে। পানিবন্দি মানুষ উঁচু স্থানে,বিভিন্ন স্কুলে,আত্বীয় স্বজনের বাড়ীতে আশ্রয় নিয়েছে। এদিকে বন্যা দুর্গত এলাকায় মানুষের খাদ্যের বিশুদ্ধ পানির পাশাপাশি গো খাদ্যে সংকট দেখা দিয়েছে।
পশ্চিম বেলগাছা গ্রামের টিক্কা শেখ জানান, বাড়ীতে পানি উঠেছে। রাস্তার ধারে আশ্রয়ন নিচ্ছি। তবে পানি উঠায় রান্না করার উপায় নাই তাই এখ নপর্যন্ত না খেয়ে আছি।
কুলকান্দি আরজু শেখ জানান,আজ বাড়িতে পানি উঠেছে সারাদির পানির উপর থাকায় অসুস্থ বোধ করছি।
পাথশী ইউনিয়ন দেলিরপাড় গ্রামের আঃ সামাদ জানান,বন্যায় মাঠে পানি উঠায় গরুর ঘাষের সমস্যায় পড়েছি।
উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কামরুজ্জামান জানান, যমুনার পশ্চিমাঞ্চল ও চিনাডুলী ইউনিয়নে বামনা,ড্যাপরাইপ্যাচসহ ২০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা পাঠদান বন্ধ করা হয়েছে। উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান,উপজেলার বলিয়াদহ উচ্চ বিদ্যালয়ে পানি উঠায় পাঠদান বন্ধ ঘোষনা করা হয়েছে। তবে পরিস্থিতির অবনতি হলে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাতিউর রহমান জানান,রোপা আমন ধান, বীজতলা,পাট,উঠতি ফসল ইক্ষু,কাঁচা তরিতরকারী বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে।
চিনাডুলি ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুস ছালাম, চর নন্দনের পাড়,গিলাবাড়ী,কুলকান্দি ইউপি চেয়ারম্যান হরিণধরা,জিগাতলা, চর বেড়কুশা,বেলগাছা ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুল মালেক, যমুনার দুর্ঘম দ্বীপচর পশ্চিম বেলগাছা,বরুল, মুন্নিয়া, সিন্দুরতলি, চরচেঙ্গানিয়া, প্রজাপতি, চরশিশুয়া ও চর বিশরশির পার্থর্শী ইউপির চেয়ারম্যান ইফতেখারুল ইসলাম বাবুল দেলিরপাড়,শুরের পাড়  এসব এলাকায় মানুষের খাদ্য ও বিশুদ্ধ পানি সংকট দেখা দিয়েছে জানিয়েছে ।
এ ব্যাপারে প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মেহেদী হাসান টিটু জানান, বন্যা দূর্যোগ মোকাবেলায় আমরা সর্বক্ষন প্রস্তুত রয়েছি।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এবিএম এহছানুল মামুন জানান, পানিবন্দী মানুষের জন্য ৬টি আশ্রয়ন কেন্দ্র খোলা রয়েছে। ইতিমধ্যে যমুনা দূর্গম অঞ্চলে ২দিনে ৮শতাধিক পরিবারের মাঝে শুকনো খাবার বিতরন করা হয়েছে।
জামালপুর-২ ইসলামপুর আসনের স্থানীয় এমপি আলহাজ ফরিদুল হক খান দুলাল জানান,বন্যা পরিস্থিতি অবনতির দিকে যাচ্ছে। তবে বন্যা কবলিত মানুষদের জন্য সকল প্রস্তুতি রয়েছে