| |

ধোবাউড়ায় বন্যায় নেতাই নদীর ভাঙ্গনে হুমকির মুখে বাড়িঘর, বনার্ত্যদের পাশে এমপিসহ জনপ্রতিনিধিরা।

আবুল হাশেম  ঃ ধোবাউড়ায় ভারী বর্ষন ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ী ঢলে সৃষ্টি হওয়া বন্যার কিছুটা উন্নতি হয়েছে। এখনও উপজেলার ৪ টি ইউনিয়নে প্রায় ৩৫ গ্রাম সম্পূর্ণ প্লাবিত হয়ে ৩০ হজার মানুষ পানিবন্দী রয়েছে। এতে মানবেতর জীবন যাপন করছে সাধারন মানুষ। ৩৫ টি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও বেশ কিছু উচ্চ বিদ্যালয় পানির নিচে থাকায় শিক্ষা কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। এদিকে গামারীতলা ইউনিয়নে এক শিশুর লাশ ভেসে আসার পর সোমবার গোয়াতলা হরিপুর গ্রামের এক শিশু বন্যার পানিতে পড়ে মারা গিয়েছে।নেতাই নদীর ভাঙ্গনে গামারীতলা ও দক্ষিণ মাইজপাড়া ইউনিয়নের প্রায় ১০ টি বাড়ি হুমকির মুখে রয়েছে।এছাড়া পোড়াকান্দুলিয়া,গোয়াতলা ও ধোবাউড়া সদর ইউনিয়নের মানুষ পানিবন্দী অবস্থায় রয়েছেন।এদিকে বনার্ত্যদের পাশে এসে দাড়িয়েছেন ধোবাউড়া হালুয়াঘাট আসনের সংসদ সদস্য মি.জুয়েল আরেং। তিনি উপজেরার বিভিন্ন ইউনিয়নে বন্যা দূর্গত এলাকায় ট্রলারে গিয়ে ত্রান সামগ্রী ওঔষধ বিতরণ করছেন। পাশাপাশি উপজেলা প্রশাসন ও ইউপি চেয়ারম্যানগন এর পক্ষ থেকেও ত্রানের ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সোমবার সকালে ধোবাউড়া সদর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান এরশাদুল হক লঞ্চযোগে ইউনিয়নে পানিবন্দী মানুষের মাঝে ত্রান বিতরণ করেন। এছাড়া ধোবাউড়া প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির উদ্যোগে বর্নাত্যদের মাঝে ত্রান বিতরণ করেন। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সাধারন সম্পাদক মোস্তাফিজুর রহমান,যুগ্ন সম্পাদক হাবিবুর রহমান খোকনসহ বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকগন বন্যা দূর্গত মানুষের মাঝে ত্রান বিতরণ করেছেন।