| |

সামাজিক অবক্ষয়তার মূল কারণ মাদক, মাদকের বিরুদ্ধে সকলকে সোচ্চার ভূমিকা রাখতে হবে -এইচ.এম ফারুক

স্টাফ রিপোর্টার : গত ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৭ বিকাল ৩ টায় ময়মনসিংহের চরকালীবাড়ী মধ্যপাড়া শেখ মুজিব স্মৃতি সংঘের আয়োজনে “ইয়াবা, গাজা, ফেন্সিডিল, হেরোইন খেলে হয় মেধা বিলীন” “খেলা ধুলায় বাড়ে বল, মাদক ছেড়ে খেলতে চল” এই স্লোগানকে সামনে রেখে একটি মাদক বিরোধী সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। সমাবেশে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ মাদক দ্রব্য নিয়ন্ত্রন অধিদপ্তরের উপ পরিচালক আলী আসলাম হোসেন। তিনি তার বক্তব্য বলেন আজ থেকে এলাকার সকল তরুণ সমাজকে লক্ষ্য রাখতে হবে তাদের দ্বারা মাদকের ছোবলে সমাজ ধ্বংস হচ্ছে। যারা মাদক সেবন করে তাদের তালিকা তৈরী করে যারা মাদক ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত আছে তাদের প্রত্যেককেই আইন ব্যবস্থার মাধ্যমে কঠোরভাবে দমন করা হবে। তার জন্য অত্র এলাকাবাসী আমার কাছে যে কোন ধরণের সহযোগিতা প্রত্যাশা করবেন আমি আপনাদের প্রত্যাশা পূরণে যথাযথ ভূমিকা পালন করব। এটা আমার ওয়াদা। উক্ত মাদক বিরোধী সমাবেশে অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামী যুবলীগের যুগ্ম আহবায়ক, সময়ের সমাজ সংস্কারক, তরুন জননেতা এইচ.এম ফারুক। তিনি তার বক্তব্যে বলেন বহু কষ্টে অর্জিত স্বাধীনতা যুদ্ধে শহীদদের রক্তের বিনিময়ে এ বাংলার মাটিতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্ন পূরণে আজকের তরুন সমাজরাই সকলকে উৎসাহিত করতে পারে। এই সময়ে তরুণ যুব সমাজেরা যথাযথভাবে নিজেদের যোগ্যতা অনুযায়ী সঠিক কর্মসংস্থানের মাধ্যমে সমাজে প্রতিষ্ঠা অর্জন করবে। কিন্তু আমি হতাশ হচ্ছি একটি পরিচ্ছন্ন সামাজিক অবস্থানকে মাদক কতটা ভয়াল করে তুলছে। সর্বনাশা মাদকে আজকের যুব সমাজ দুমড়ে পড়ছে। নেশায় আসক্ত হচ্ছে, মস্তিষ্কের বিকৃতি ঘটছে। অথছ যে পরিবারের সন্তান মাদকে আসক্ত হচ্ছে তাদের বাবা-মায়ের কষ্টের কোন সীমা নাই। আজ থেকে এই চরকালীবাড়ী মধ্যপাড়ার তরুণ সমাজকে একটা বিষয় লক্ষ্য রাখতে হবে যারা মাদক ব্যবসার সাথে সম্পৃক্ত আছে তাদের প্রত্যেকের মুখোশ খুলে দিতে হবে। আমাদের প্রশাসন সামাজিক এই সফল কর্মকান্ডের পাশে সব সময় সহযোগিতা করবে। কেউ ভয় পাবেন না। এই মুষ্ঠিমেয় কয়জন মাদক ব্যবসায়ী এই সমাজটাকে ধ্বংসের দিকে নিয়ে যাচ্ছে। এই ধ্বংসের ছোবল থেকে এই চরকালীবাড়ীর প্রতিটি পরিবারকে রক্ষা করার দায়িত্ব সামাজিকভাবে তরুণ যুব সমাজের। আপনারা কোন অবস্থাতেই পিছু হটবেন না। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণ আপনারা শুনেছেন। ৭ই মার্চ বাংলাদেশের ইতিহাসে একটি ঐতিহাসিক দিন। আমি বলতে চাই আজকের এই মাদক বিরোধী সমাবেশ চরকালীবাড়ী মধ্যপাড়ার একটি ঐতিহাসিক দিন। আজকের পর থেকে গাজা, ইয়াবা, ফেন্সিডিল, হেরোইন সহ কোন ধরণের মাদক সেবন ও ব্যবসা এই চরকালীবাড়ীতে যেন না চলে তার জন্য আপনাদের প্রতিজ্ঞা করতে হবে। গ্রামের মা-বোনেরা আমার এই কথা শুনছেন। আপনারাও আপনাদের সন্তানের প্রতি আদর ও ভালোবাসার মাধ্যমে তাদেরকে মাদকের কড়াল গ্রাস থেকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করুন। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মানবতার জননী। তিনি মিয়ানমারের লাখ লাখ রোহিঙ্গাদের জন্য চোখের জল ফেলেছেন। দিয়েছেন বাংলাদেশে অস্থায়ীভাবে থাকার সুযোগ। মানবতার জন্য জননেত্রী শেখ হাসিনার অবদান সব সময় রেখে চলেছেন। আসুন আমরা মানবিক হই, মানবতার মধ্য দিয়েই সমাজটাকে সুন্দরভাবে গঠনের চেষ্টা করি। সৎ ইচ্ছা রাখি, ভালো চিন্তা করি। সমাজ মাদকমুক্ত হবেই, আমরা ভালো কিছু করতে পারবো। পরিশেষে একটি কথাই বলব বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সরকার উন্নয়নে বার বার দরকার। জননেত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করার জন্য আপনারা আবারও নৌকায় ভোট দিবেন। জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু। এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে অথিতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন ৬ নং চর ঈশ্বরদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মুর্শেদুল আলম জাহাঙ্গীর। তিনি তার বক্তব্যে বলেন যে কোন পরিস্থিতিতে সমাজকে মাদকমুক্ত করতে হবে। তার জন্য আপনারা আমাকে সবসময় কাছে পাবেন। আপনারা মাদকের বিরুদ্ধে সোচ্চার ভূমিকা পালন করুন। অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কোতোয়ালী মডেল থানার ইন্টিলিজেন্ট এন্ড কমিউনিটি পুলিশিং অফিসার মো: মুশফিকুর রহমান। তিনি তার বক্তব্যে বলেন আমি আপনাদের সামনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হয়ে বলছি আপনারা এই মাদকের বিরুদ্ধে সবসময় আমাকে কাছে পাবেন। যখনি মাদক ব্যবসায়ীদের দেখবেন তাদের তৎপরতা ও সেবনকারীদের সেবনকরণ এবং কারা এই মাদকের সাথে জড়িত আছে তাদের তথ্য আমাকে জানাবেন। জানানোর তিন থেকে চার দিনেই মধ্যে যদি আপনারা মাদকের আমার কোন ভূমিকা না পান তাহলে আমাকে বলবেন আপনাকে দিয়ে কোন কাজ হয়নি। আমি কথা দিলাম আমাকে যারা তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করবেন আমি সকলের নাম গোপন রাখব। চরকালীবাড়ীর বঙ্গবন্ধু ঐক্য যুব সংঘের তরুণদের সহযোগিতায় এবং ময়মনসিংহ মহানগর প্রেস ক্লাব ও সুবর্ণ বাংলা পত্রিকার সার্বিক সহযোগিতায় মাদক বিরোধী সমাবেশের সভাপতি নাজিম উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে সমাবেশের সমাপ্তি ঘটে।