| |

নান্দাইলে মুশুলী স্কুল এন্ড কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার নিমন্ত্রন পত্র নিয়ে উত্তেজনা ॥ পক্ষে-বিপক্ষে মিছিল

নান্দাইল প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার মুশুলী স্কুল এন্ড কলেজের আগামী ২৮ জানুয়ারী অনুষ্ঠিতব্য বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতার নিমন্ত্রন পত্র নিয়ে এলাকায় তীব্র উত্তেজনা, পক্ষে-বিপক্ষের মাঝে মিছিল, পাল্টা মিছিল বৃহস্পতিবার হয়েছে। পরে নান্দাইল মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে পরিস্থিতি সাময়িক নিয়ন্ত্রন করে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে জানাযায়, কলেজ থেকে ছাপানো নিমন্ত্রন পত্রে অতিথি কলামে বর্তমান উপজেলার চেয়ারম্যান আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুল মালেক চৌধুরীর নাম দেওয়া হয়নি। অপরদিকে মুশুলী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হিসাবে আহসান কবির খাঁন কচি ও সাধারন সম্পাদক হিসাবে মোঃ আব্দুল কাদিরের নাম বিশেষ অতিথি কলামে রাখা হয়েছে। এক অংশের ছাত্ররা উপজেলা চেয়ারম্যানের নাম দেওয়ায় বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠানের তারিখ পরির্বতন সহ নতুন করে নিমন্ত্রন পত্র ছাপানোর দাবী জানান। অপরদিকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক শফিকুল কবির খাঁন অঞ্জন, যুগ্ম আহ্বায়ক মাসুদুর রহমান বাবুল ও আব্দুল রশিদ বাচ্চু জানান কচি ও কাদির আওয়ামী লীগের সভাপতি-সম্পাদক নন। অথচ কলেজ কর্তৃপক্ষ তাদের নাম ব্যবহার করেছেন। এই পক্ষ ক্রীড়া প্রতিযোগীতার তারিখ পরিবর্তন সহ কচি ও কাদিরের নাম বাদ দিয়ে নতুন করে নিমন্ত্রন পত্র ছাপানোর দাবী জানান। অন্যথায় ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠানে কোন প্রকার গোলযোগ হলে অধ্যক্ষ মঈনুল হোসেন আরজু ও শরীর চর্চা শিক্ষক মোঃ সাইফুল মালেককে এর দায় দায়িতœ নিতে হবে। কলেজের অধ্যক্ষ মঈনুল হোসেন আরজু জানান তিনি বিষয়টি নিয়ে গভর্ণিং বডি ও প্রশাসনের পরামর্শক্রমে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহন করবেন । অপরদিকে ২৮ জানুয়ারী ক্রীড়া প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠান সম্পন্ন করার দাবী জানিয়ে কলেজের কিছু ছাত্র বিক্ষোভ মিছিল বের করে। এনিয়ে বর্তমানে মুশুলী স্কুল এন্ড কলেজ এলাকায় ৩টি পক্ষের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছে। যেকোন সময় রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের আশংকা করছেন এলাকার অভিভাবকবৃন্দ।