| |

মুক্তাগাছায় যুবলীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে যানবাহনে আগুন পাল্টা পাল্টি মামলা, শহরে থমথমে অবস্থা

মুক্তাগাছা  প্রতিনিধি : অটোরিকশার টোল আদায় ও স্ট্যান্ড দখল নিয়ে যুবলীগের দু’গ্রুপের দ্বন্দ্বে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান ভাংচুর ও যানবাহনে আগুন দেয়ার ঘটনায় দ্রুত বিচার আইনসহ দু’গ্রুপের পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে মুক্তাগাছা থানায়। দু’টি মামলায় প্রায় অর্ধশত ব্যক্তিকে আসামী করা হয়েছে। এ ঘটনায় শহরে এখনো থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।
ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা শহরের অটোরিকশার টোল আদায় ও স্ট্যান্ড দখল নিয়ে যুবলীগের একটি অংশ কয়েকদিন ধরে শহরে শোডাউন করে । রোববার সকাল ১১টার দিকে পৌর যুবলীগের সদস্য সাইদুল ইসলাম শহরের দরগাহপাড় এলাকায় সিএনজি চালিত অটোরিকশার টোল আদায় করতে যায়। এ সময় উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মাহবুবুল হক মনি ও তার লোকজন সাইদুলকে মারধর করে। এ ঘটনায় ওইদিন দুপুর পৌনে একটায় পৌর যুবলীগ ও উপজেলা যুবলীগের একটি অংশ বিশাল লাঠি মিছিল নিয়ে উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মাহবুবুল হক মনিকে খোঁজতে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠান শহরের দরগাহপাড় এলাকায় বিহন মোটরসে যায়। সেখানে তাকে না পেয়ে তার ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে ব্যাপক ভাংচুর করে তারা। হামলাকারীরা দোকানের সামনে থাকা একটি মোটর সাইকেল ও একটি ব্যাটারি চালিত অটোবাইকে আগুন ধরিয়ে পুড়ে দেয়। এ উভয় গ্রুপের পাল্টাপাল্টি মামলা হয়েছে। তারাটি পূর্বপাড়া গ্রামের মঞ্জুরুল ইসলাম ফরিদ ও তার সহোদর ছোট ভাই আলমগীর হোসেনসহ ২৮ জনের নামে দ্রুত বিচার আইনে মুক্তাগাছা থানায় মামলা করেছে উপজেলা যুবলীগের সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মাহবুবুল হক মনি। এদিকে মাহবুবুল হক মনিকে প্রধান আসামী করে ৮ জনের নামে মুক্তাগাছায় থানায় মামলা করেছে উপজেলা যুবলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক জাহাঙ্গীর হাসান সরকার। পাল্টাপাল্টি মামলা হওয়ায় শহরে দু’টি গ্রুপের মাঝে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

মুক্তাগাছা থানার ওসি আলী আহমেদ মোল্লা বলেন, দ্রুত বিচার আইনসহ দু’টি গ্রুপের দু’টি মামলা হয়েছে মুক্তাগাছা থানায়। মামলার পর থেকে আসামীদের গ্রেফতারে বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালানো হচ্ছে।