| |

করিমগঞ্জে সম্ভাব্য ইউপি চেয়ারম্যান প্রার্থীকে অপহরণের চেষ্টা ॥ হাসপাতালে ভর্তি

কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি ॥ জেলার করিমগঞ্জ উপজেলার জয়কা ইউনিয়ন পরিষদের সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী আবুল হাসেনকে (৪৪) অপহরণের চেষ্টা চালিয়েছে দুর্বৃত্তরা। তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শনিবার দিবাগত রাতে স্থানীয় ঝাউতলা বাজার থেকে নিজবাড়ি রতনপুরে যাওয়ার পথে এ ঘটনাটি ঘটে।
পুলিশ ও স্থানীয় একাধিক সূত্র জানায়, উপজেলার জয়কা ইউনিয়নের রতনপুর গ্রামের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাওলানা ছফির উদ্দিনের ছেলে প্রবাসী ফেরত আবুল হাসেনের সাথে দীর্ঘদিন ধরে একই গ্রামের আঃ রশিদ ফকিরের ছেলে আঙ্গুর মিয়া (৪২), সেলিম ফকির (৪০) ও শামীম ফকির (৩২) গংদের সাথে জমিজমা নিয়ে দ্বন্দ্ব চলছিল। এ নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে আদালতে মোকদ্দমাও রয়েছে। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আবুল হাসেন সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় প্রতিপক্ষের লোকজন তার ওপর আরো ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে। বিভিন্ন সময় তাকে দেখে নেওয়ার হুমকি-প্রদর্শন করতো বলে জানা গেছে।
শনিবার রাতে আবুল হাসেন স্থানীয় ঝাউতলা বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় কলাবাগ এলাকায় পৌঁছলে আঙ্গুর মিয়ার নেতৃত্বে ১০-১৫ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল তাকে জোরপূর্বক উঠিয়ে নেওয়ার চেষ্টা চালায়। এক পর্যায়ে মুখ চেপে ধস্তাধস্তির সময় দুর্বৃত্তরা রড দিয়ে এলোপাতারি পিটিয়ে তার দুই পা ও ডান হাত ভেঙে দেয়। এ সময় দুর্বৃত্তরা হাসেনের সাথে থাকা নগদ ২ লক্ষ টাকা ও একটি দামী মোবাইল ফোনসেট ছিনিয়ে নিয়ে যায়। পরে ডাকচিকিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে এলে দুর্বৃত্তরা পালিয়ে যায় এবং গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয়রা হাসেনকে উদ্ধার করে উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে যায়। সেখানে তার অবস্থার অবনতি হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাতেই তাকে ময়মনসিংহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করে।
আহতের বড় ভাই আবুল কাশেম জানান, দীর্ঘদিন ধরে জমিজমা দ্বন্দ্বের জেরে ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ায় তার ছোট ভাইকে হুমের উদ্দেশ্যে অপহরণের চেষ্টা চালানো হয়েছে। বর্তমানে আহতের অবস্থায় আশঙ্কাজনক বলে তিনি জানান।
করিমগঞ্জ থানার ইনচার্জ দীপক চন্দ্র মজুমদার ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, এ ব্যাপারে যথাযথ আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।