| |

হালুয়াঘাটে বদলী আদেশের প্রায় তিন বছর অতিবাহিত হলেও মানছেন না পৌরসভার হিসাব রক্ষক

জোটন চন্দ্র ঘোষ ঃ হালুয়াঘাটে অর্থআত্মসাৎ এর অভিযোগ ও বদলি আদেশের প্রায় তিন বছর অতিবাহিত হলেও বহাল তবিয়তে রয়েছেন হালুয়াঘাট পৌরসভার হিসাব রক্ষক মোঃ আনোয়ারুল কবির লিটন । উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের আদেশ মানছেন না তিনি।

জানা যায়, গত ২০১৫ সনের ৩০ জুন ইং তারিখে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বিভাগ পৌর-১ শাখার উপ সচিব খলিলুর রহমান স্বাক্ষরিত সারাদেশের ১০২ জন হিসাব রক্ষককে হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা পদে নং ৪৬.০৬৩.০১২.০১.০০.০০১.২০১০-১০১৫ স্মারক মূলে পদোন্নতি প্রদান করে ৪৭ নং ক্রমিকে মোঃ আনোয়ারুল কবির লিটনকে হালুয়াঘাট পৌরসভা থেকে গৌরিপুর পৌরসভায় বদলির অফিস আদেশ প্রদান করেন । তথ্যাপি বদলি আদেশের প্রায় তিন বছর পেরিয়ে গেলেও বহাল তবিয়তে রয়েছেন লিটন ।

এছাড়াও ২০১৫ সনের ৪ জুন এবং ২০১৫ সনের ৭ জুন মন্ত্রী স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয় এবং সচিব স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়, বাংলাদেশ সচিবালয়, জেলা প্রশাসক, ময়মনসিংহ বরাবর তৎকালীন সহকারী প্রকৌশলী এবিএম শরীফুল আলম অর্থআত্মসাৎ এর লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

অভিযোগে প্রকাশ ২০০৪ সনের ১২ জুলাই বাংলাদেশ সরকারের গেজেট অমান্য করে অবৈধ পন্থায় একক স্বাক্ষরে পৌরসভার তিনটি তহবিল হইতে তৎকালীন পৌর প্রশাসক মোঃ আব্দুল আউয়াল ও আনোয়ারুল কবির লিটন (চঃ দা) বিভিন্ন কাজের নামে এবং বিভিন্ন প্রকার কেনাকাটা সহ কাগজে কলমে বিল প্রদান করে অর্থ আত্মসাৎ করেন। ঐ সমস্ত বিল ভাউচারের সহকারী প্রকৌশলী কিংবা সচিবের স্বাক্ষর নেই এমনকি ইঞ্জিনিয়ারিং ইষ্টিমেটও নেই। লিটনের সহযোগিতায় পৌরসভার কক্ষে ঠিকাদারী তালিকাভুক্তির নথিপত্র নিয়ে পৌর প্রশাসক, তৎকালীন সহকারী প্রকৌশলী শরীফুল আলমকে লাঞ্চিত করেন এবং হুমকি প্রদান করে এই মর্মে হাড়গুড় ভেঙ্গে জেলখানায় পাঠানো হবে ।

এ বিষয়ে হিসাব রক্ষক আনোয়ারুল কবির লিটন বলেন, তিনি গৌরিপুর পৌরসভায় যোগদান করতে গিয়ে ছিলেন কিন্তুু মেয়র বেতন দিতে পারবেন না বলে যোগদান করতে দেননি । অত্র পৌরসভা থেকে ছাড়পত্র নেয়নি, বদলির অফিস আদেশ তারিখ ছিল না বলে জানান। তাই তিনি এই ভাবেই অত্র পৌরসভায় আছেন , মন্ত্রনালয়ে আবেদন করেছেন বলে তিনি জানান ।

এ বিষয়ে গৌরিপুর পৌরমেয়র সৈয়দ রফিকুল ইসলাম মুঠোফোনে বলেন, উক্ত ব্যক্তি তার পৌরসভায় যোগদান করতে যায়নি ,তার নামে মিথ্যাচার করছেন। তিনি আরও বলেন, যোগদান পত্র গ্রহন না করলে উক্ত হিসাব রক্ষক মন্ত্রনালয়ে লিখিত আবেদন করতে পারেন । প্রায় তিন বছর আগের বিষয় তার সঠিক জানানেই বলেও তিনি জানান ।

এ বিষয়ে পৌর প্রশাসক জাকির হোসেন বলেন, অর্থআতœসাৎ এর অভিযোগ কিংবা হিসাব রক্ষক আনোয়ারুল কবির লিটনের বদলির বিষয়ে তার জানানেই। বদলি জনিত বিষয়টি মন্ত্রনালয়ের বলে তিনি জানান।