| |

চাকুরি চ্যুত কর্মকর্তা দিয়ে চলছে শ্রীবরদীর কৃষি ব্যাংক !!!

এনামুল কবির,প্রতিনিধি ঃ অবিশ্বাস্য হলেও সত্য যে চাকুরি চ্যুত কর্মকর্তা দিয়েই চলছে শেরপুরের বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক শ্রীবরদী শাখা। ব্যবস্থাপক মুশফিকুর রহমান যোগদানের পর থেকেই একের পর এক অবিশ্বাস্য ঘটনা ঘটে চলছে এ শাখায়। জানা যায়, এ.এম জগলুর পাশা বাংলাদেশ কৃষি বাংক দেওয়াগঞ্জ শাখায় চাকুরিরত অবস্থায় বিদ্যুৎ বিলের টাকা আত্বসাৎ করায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে শাস্তি হিসেবে ডিমশনে ক্যাশিয়ার থেকে সহকারি ক্যাশিয়ার হিসেবে বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক শ্রীবরদী শাখায় বদলী করেন। শুটকির বাজারে বিড়াল পাহাড়াদার থাকলে যা হয় অর্থাৎ শ্রীবরদী শাখায় যোগদানের পর আবার বিদ্যুৎ বিলের টাকা আত্বসাৎ করলে উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তদন্ত করে আত্বসাতের সত্যতা প্রমাণিত হলে তাকে চাকুরি থেকে বরখাস্ত করা হয়। সূত্র জানায়, ব্যবস্থাপক মুশফিকুর রহমান যোগদান করার পর থেকেই ওই বহুল আলোচিত চাকরি চ্যূত কর্মকর্তাকে দিয়ে ঋণের ফাইল সহ বিভিন্ন কাজ করিয়ে আসছে। যাহা বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংকের নিয়ম বহির্ভূত। এ বিষয়ে তৎকালীন ব্যবস্থাপক সেলিম মিয়া বরখাস্তের সত্যতা স্বীকার করে বলেন, এ.এম জগলুর পাশা বিদ্যুৎ বিলের টাকা আত্বসাৎ করায় উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ তাকে বরখাস্ত করেন। এ বিষয়ে এ.এম. জগলুর পাশা বলেন, আমি এখানে অফিসিয়াল কাজ করি। তিনি অত্র ব্যাংকে কর্মরত আছেন কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন আমি অত্র ব্যাংকে কর্মরত আছি। অত্র বিষয়ে ব্যবস্থাপক মুশফিকুর রহমান এ প্রতিবেদককে বলেন, জনবল কম থাকায় তাকে দিয়ে দাপ্তরিক কাজ করানো হচ্ছে। তবে পরবর্তী সময় থেকে তাকে আর ব্যাংকে দেখবেন না। এ ব্যাপারে আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক মোঃ লুৎফর রহমান বলেন, ইতি পূর্বে তাকে আমি বাংলাদেশ কৃষি ব্যাংক গাজির খামার শাখায় দেখেছি। চাকুরি চ্যুত ব্যক্তি ব্যাংকে কাজ করবে কেন? চাকুরির প্রত্যয়ন বিষয়ে দুই এক দিন আসতে পারে তবে দীর্ঘ সময় নয়। চাকুরি চ্যুত ব্যক্তি ব্যাংকে কাজ করবে এটা ঠিক নয়। তবে এখন মনে হয় তারা এলার্ট হয়ে গেছে। অত্র বিষয়ে জেনারেল ম্যানেজার মালেক নেওয়াজ এ প্রতিবেদককে বলেন, আমি অনেক দুরে থাকি বিধায় এত দুরে থেকে মনিটরিং করা কঠিন। আপনি আঞ্চলিক ব্যবস্থাপকের সাথে কথা বলুন। অর্থ আত্বসাতের অভিযোগে অভিযুক্ত হয়ে চাকুরি চ্যুত হওয়ার পরেও ওই ব্যক্তিকে দিয়ে ব্যাংকের মত গুরুত্বপূর্ণ দপ্তরে কিভাবে ব্যবস্থাপক মুশফিকুর রহমান কাজ করান তাহা নিয়ে শ্রীবরদী সচেতন মহলের মধ্যে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সদয় হস্তেক্ষেপ কামনা করছেন এলাকাবাসীসহ সচেতন মহল ।