| |

মৃত্যুফাঁদ মোক্তারপাড়া ব্রীজ!

নেত্রকোনা : মৃত্যুফাঁদে পরিণত হয়েছে নেত্রকোনা জেলার প্রধান যোগাযোগ ব্যবস্থা মোক্তারপাড়া ব্রীজ। মঙ্গলবার (১০ নভেম্বর) সকালের দিকে ব্রীজের কিছু অংশ মগড়া নদীতে ভেঙে পড়ায় এ মৃত্যুফাঁদের সৃষ্টি হয়। রাজধানী ঢাকাসহ সুনামগঞ্জ ও সিলেট জেলার একমাত্র সংযোগস্থল ভগ্নদশার মোক্তারপাড়া ব্রীজ। জেলাবাসীসহ বিভিন্ন যানবাহনের চালকদের মধ্যে ব্রীজের একাংশ ভাঙার পর আতঙ্ক লক্ষ্য করা যায়। ভাঙা অংশ এড়িয়ে চলতে গিয়ে শহরজুড়ে সৃষ্টি হয়েছে তীব্র যানজট। এ অবস্থা নিয়ন্ত্রণ করতে গিয়ে দুর্ভোগে পড়েন নিয়োজিত ট্রাফিক পুলিশ। আতঙ্ক নিয়ে ভয়ে ভয়ে তাদেরকে দায়িত্ব পালন করতে দেখা যায়। দেড় বছরের মধ্যে ব্রীজটি এ নিয়ে অন্তত দশবার বিভিন্ন অংশে ভেঙে পড়েছে। এ পরিস্থিতিতে জোড়াতালি দিয়ে বারবার দায়িত্ব পালন করে আসছেন সড়ক ও জনপথ (সওজ) কর্তপক্ষ। আইনজীবী নূর-ই- এলাহি খান, মানবেন্দ্র বিশ্বাস উজ্জ্বল, পিপি জি.এম.খান পাঠান বিমল, সমাজ সেবক মজিবুর রহমান জজ, হাবিবুর রহমান খান রতন, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সাইফুল্লাহ ইমরানসহ স্থানীয়দের দাবি, যান চলাচলসহ পায়ে হেঁটেও যাতায়াত ব্যবস্থায় অনুপোযোগী এই মগড়া ব্রীজ। জানার পরও বিকল্প পথ না থাকায় বাধ্যতামূলক চলতে হয়। যেকোন সময় সেতুটি ভেঙ্গে পড়ে প্রাণহানির ঘটনা ঘটবে বলেও মন্তব্য তাদের। আর সেতুটি ভেঙ্গে পড়লে নেত্রকোনার সঙ্গে অন্যান্য জেলা ও বিভাগীয় শহরের যোগাযোগ বন্ধ হয়ে অচল হয়ে পড়বে নেত্রকোনা। নেত্রকোনা সড়ক ও জনপথ বিভাগ (সওজ) এর নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদ খান জানান, দ্রুত সময়ে ভাঙ্গা অংশটি মেরামত করা হচ্ছে। আশার কথা জানিয়ে প্রকৌশলী আরও বলেন, নতুন ব্রীজ নির্মানের জন্য টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। যার ব্যায় প্রায় ১১ কোটি টাকা। ডিসেম্বর মাসের মধ্যে কাজ শুরু হবে। প্রসঙ্গত, ৭২.৯৫ মিটার দীর্ঘ এ সেতুটি ১৯৬৫ সালে নির্মান হয়। পরে সময়ে সময়ে বিভিন্নস্থানে অসংখ্যবার ফাঁটল ও ভাঙার কারনে এলাকাবাসী ব্রীজটিকে ঝুকিপূর্ণ হিসেবে চিহ্নিত করেন।