| |

ত্রিশালে ব্যবসায়ির পুরুষাঙ্গ কেটে দিল এক লেডী ক্লিয়ার

রফিকুল ইসলাম শামীম ঃ
ময়মনসিংহের ত্রিশালে উপজেলার মোক্ষপুর ইউনিয়নের কৈতর গ্রামের লেডী ক্লিলার আসমানী খাতুন মুর্শিদা (৪৫) এর সাথে পার্শ্ববতী ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের বাসিন্দা সেনিটারী ব্যবসায়ি কায়সারের ৩/৪ বৎসর যাবৎ পরিচয় ও অবৈধ সম্পর্ক চলচিল। জানাযায়- টাকা পয়সা লেনা দেনা নিয়ে সম্প্রতি মুর্শিদা ও কায়সারের বিরোধ চলে আসছিল। এ নিয়ে তাদের মাঝে ঝগড়া ও হয় অনেকবার বিষয়টি সহজ ভাবে মেনে নিতে না পেরে ক্ষোভে তার পুরুষাঙ্গ কেটে দিল ওই নারী। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর ময়মনসিংহের ত্রিশালে মোক্ষপুর ইউনিয়নের কইতর বাড়ি এলাকায়।
পুলিশ ও ওই নারীর বক্তব্যের সূত্রে জানা গেছে, ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের মেনজেনা বাজারে সেনিটারী ব্যবসা করতেন কায়সার। ত্রিশালের কইতর বাড়ি গ্রামের আসমানী খাতুন ওরফে মুর্শিদা (৪৫) এর সাথে ৪ বছর আগে পরিচয়। দুই উপজেলার সিমান্তবর্তী ওই গ্রাম দুটি। পরে অবৈধ সম্পর্ক গড়ে উঠার সুবাদে প্রায়ই রাতের বেলা মুর্শিদার বাড়িতে আসা-যাওয়া ছিল তার। কিন্তুু মাসখানেক ধরে দু’জনের মধ্যে সম্পর্কের অবনতি ঘটলেও মোহের টান কমেনি কায়সারের। দেখা করার ব্যাপারে বৃহস্পতিবার ফোনে কথা হয় তাদের। সন্ধ্যার পর কায়সার আসে মুর্শিদার বাড়িতে। এরপর পূর্ব প্রস্তুতি নিয়ে থাকা ওই নারী বিছানায় শুইয়ে কায়সারে পুরুষাঙ্গ কেটে দেয়। পরে ঘর থেকে বের হয়ে দৌড়ে খলাবাড়ি বাজারে গেলে স্থানীয়রা তাকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালে ভর্তি করে। কাওসার ভালুকা উপজেলার উথুরা ইউনিয়নের মেনজেনা গ্রামের আব্দুল মজিদের ছেলে। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে কায়সারে ছোট ভাই নোমান আহম্মেদ বাদী হয়ে ত্রিশাল থানায় অভিযোগ দায়ের করলে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে মুর্শিদা ও তার ছেলে সোহাগকে আটক করে। ওই নারীর ঘর থেকে কেটে ফেলা লিঙ্গটি উদ্ধার করে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের চিকিৎসকের কাছে পাঠিয়েছে পুলিশ। এ ঘটনার সাথে সোহাগের কোন সংশ্লিষ্টতা না থাকায় তাকে ছেড়ে দেওয়া হয় এবং শুক্রবার দুপুরে মুর্শিদাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।
তবে এ ব্যাপারে মামলার বাদী নোমান জানান, কাওসার উথুরা ইউনিয়নের মেনজেনা বাজারে সেনিটারী ব্যবসা করতেন। ত্রিশালের কইতর বাড়ি এলাকার এক ব্যক্তির কাছে ১ লক্ষ টাকা পেতেন। ওই পাওনা টাকা আনতে গেলে সোহাগের সাথে থাকা অজ্ঞাত ৪/৫ জন লোক কাওসারকে ধরে তার পুরুষাঙ্গ কেটে দেয়।
ওসি জাকিউর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার রাতে মামলা হওয়ার পর রাতেই আসামি আসমানী খাতুন ওরফে মুর্শিদাকে গ্রেফতার এবং লিঙ্গ উদ্ধার করা হয়। মুর্শিদাকে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। তবে প্রতিহিংসা পরায়ন বশতঃই এ ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে।