| |

পূর্ব ঘোষনা ছাড়াই স্কুল বন্ধ শিক্ষা নিতে এসে ফিরে গেলো হাজী ফুল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা

ইসলামপুর  প্রতিনিধি ্॥ পূর্বের ঘোষনা ছাড়াই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় শিক্ষা নিতে এসে ফিরে গেল হাজী ফূল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। এতে শিক্ষার্থী ও অভিবাবকদের মাঝে চরম ক্ষোভ বিরাজ করছে। এ ব্যাপারে তারা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও পরিচালনা পর্ষদদের দায়ী করেছে।
জানাগেছে, দীর্ঘ সময় সরকারী বিভিন্ন ছুটি থাকায় সারাদেশের অফিস আদালত,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল। দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর যথারীতি বৃহস্পতিবার অফিস আদালত,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা রাখার নির্দেশ থাকলেও পূর্বের নোটিশ ছাড়াই জামালপুরের ইসলামপুর উপজেলার হাজী ফুল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক স্কুলে না যাওয়ায় তালাবদ্ধ স্কুলটি খোলা হয়নি। এতে ছাত্রছাত্রীরা শিক্ষা নিতে স্কুলে এসে ফিরে যেতে বাধ্য হয়েছে।
শিক্ষার্থীরা জানায়, আমরা বৌদ্ধ পুর্নিমা,শবেবরাদ বন্ধের পর বৃহস্পতিবার স্কুল খোলা থাকবে জেনে ক্লাস করতে এসেছি। ঠিক এই সময় দুজন স্যার আসলেও হেড স্যার না আসায় আমাদের স্কুলের তালা আর খোলা হয়নি। তাই দীর্ঘ সময় অপেক্ষা করে বন্ধ আমরা আজ ক্লাস করতে পারলামনা। বৃহস্পতিবার বন্ধ থাকবে এমন কোন নোটিশও আমাদের আগে দেওয়া হয়নি।
এলাকাবাসী জানায়, আমাদের দূর্গম চরাঞ্চলে মানুষ এক সময় দীর্ঘ নদীপথ পাড়ি দিয়ে চরাঞ্চল থেকে পায়ে হেটে গরিব মেধাবী ছাত্রছাত্রীরা দীর্ঘপথ পাড়ি দিয়ে স্কুলে যেতে হতো। এখন এলাক্য়া একাধিক প্রতিষ্ঠান হওয়ায় আমাদের সৌভাগ্য। তবে প্রতিষ্ঠান থাকলেও পরিচালনা পর্ষদের অবহেলা মাঝে মধ্যে শিক্ষক না আসা,ক্লাস না হওয়া সহ নানান সমস্যর সৃষ্টি হয়েছে। তারি ধারাবাহিকতায় আজও স্কূল খোলা থাকার কথা থাকলেও হেড মাষ্টার না আসায় ছাত্রছাত্রীরা ফিরে যাচ্ছে। আমরা এ ব্যাপারে প্রশাসনকে হস্তক্ষেপ কামনা করছি।
ওই প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষক আলতাফ হোসেন জানান,বৃহস্পতিবার হাফ স্কুল হওয়ায় আমি একটু আগেই ছুটি দিয়েছি।
হাজী ফূল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা, তথ্যচিত্র নির্মাতা বিশিষ্ঠ শিক্ষানরাগী জুলফিকার রহমান জানান, ব্রহ্মপুত্র নদ বিধৌত একটি গ্রাম উপজেলার চর গোয়ালীনি ইউনিয়নের প্রত্যন্ত অঞ্চলে লক্ষীপুর গ্রামটি অবস্থিত। এলাকার সুধীজন বিশিষ্ঠজন ও জনগনের প্রচেষ্ঠায় প্রত্যন্ত অঞ্চলের লক্ষীপুরে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে হাজী ফুল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়। বিগতদিনে বিদ্যালয়,দক্ষ পরিচালনা পর্ষদ ও দক্ষ শিক্ষক মন্ডলীর ঐকান্তিক প্রচেষ্ঠায় দূর্গম চরাঞ্চল শিক্ষার্থীরা প্রতি বছরই উচ্চ শিক্ষার পিড়িতে পা রাখলেও বর্তমানে সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত এই সমস্যার সমাধান হবে।
এ ব্যাপারে উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা গোলাম মোস্তফা জানান, পূর্ব ঘোষিত বা সরকারী কোন ছুটি না থাকায় স্কুল খোলা থাকার কথা রয়েছে। হাজী ফূর মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয়টি বন্ধ ছিল অভিযোগ পেয়েছি। এই আলোকে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মিজানুর রহমান জানান, হাজী ফুল মাহমুদ উচ্চ বিদ্যালয় বন্ধ থাকায় শিক্ষার্থীরা ক্লাস করতে না পারায় ফিরে যাওয়ার বিষয়টি শুনেছি। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।