| |

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইমলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে নজরুল জয়ন্তী’র ৩ দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের শুভ উদ্বোধন

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আজ প্রথমদিন ০৯-০৫-২০১৮ তারিখ বুধবার প্রথমে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান এবং সম্মানিত অতিথিবৃন্দ। এরপর সম্মানিত অতিথিবৃন্দকে সাথে নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের পতাকা উত্তোলন করেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর।

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় দিবস এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের একযুগ পূর্তি উপলক্ষে এক আনন্দ শোভাযাত্রা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। এরপর ‘গাহি সাম্যের গান’ মঞ্চে কেক কাটেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর।

নজরুল জয়ন্তী ২০১৮ এর উদ্বোধনী পর্ব ও আলোচনা সভায় উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট নজরুল গবেষক ইমেরিটাস প্রফেসর ড. রফিকুল ইসলাম। উদ্বোধক ও প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন কালজয়ী পুরুষ। তিনি রাষ্ট্রের গন্ডি পেরিয়ে বিশ্বময় হয়েছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘আমার সৌভাগ্য নজরুলকে নিয়ে আমি কাজ করতে পেরেছি, চর্চা করতে পেরেছি। যারা নজরুল এবং বঙ্গবন্ধুর চরিত্র হরণ করতে চায় তারা আমাকে ভয় পায়।’ প্রধান অতিথি বলেন, ‘নজরুলের প্রতি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আকর্ষণ ও আগ্রহ রয়েছে। আর তাই এই বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নতির জন্য মাননীয় প্রধানমন্ত্রী মুক্ত হস্ত রয়েছেন। তবে নজরুলের আলোক বিচ্ছুরণ যেন এই বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বের হয় তার ব্যবস্থা করতে হবে। একদিন এই বিশ্ববিদ্যালয় দেশের বৃহৎ বিশ্ববিদ্যালয় হিসেবে গড়ে উঠবে।’

উদ্বোধনী পর্ব ও আলোচনা সভায় সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান। সভাপতি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন প্রেমের কবি, দ্রোহের কবি, বিপ্লবের কবি, সাম্যের এক মহান কবি। মহান কবির প্রতি সঠিক মর্যাদা দিয়ে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভারত থেকে বাংলাদেশে নিয়ে এসে জাতীয় কবির মর্যাদ দেওয়ায় বঙ্গবন্ধু এবং মহান কবির প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানাচ্ছি।’

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ অধ্যক্ষ হামিদা আলী, বিশিষ্ট সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব, বিটিভি’র সাবেক মহাপরিচালক ও জাককানইবি’র সিন্ডিকেট সদস্য জনাব ম. হামিদ, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম, কলা অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মুশাররাত শবনম, শিক্ষক সমিতির সভাপতি জনাব তপন কুমার সরকার। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ড. মো: হুমায়ুন কবীর।

বিশ্ববিদ্যালয়ের কনফারেন্স কক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের প্রফেসর ড. সৌমিত্র শেখর-এর সভাপতিত্বে আন্তর্জাতিক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। ‘বাংলাদেশের চলচ্চিত্রে নজরুলের গান’ এবং ‘নজরুলের ঝিলিমিলি: বাস্তবতায় ও বিন্যাসে’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করা হয়।

এছাড়া অনুষ্ঠানের সভাপতি মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান ফিতা কেটে চারুকলা বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী- ২০১৮ এর আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন। শতাধিক ছবি এই প্রদর্শনীতে স্থান পায়।

শেষে ‘গাহি সাম্যের গান’ মঞ্চে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের প্রযোজনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবি নজরুলের গান, কবিতা, নৃত্য অনুষ্ঠিত হয়। অতিথি শিল্পী হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নৃত্যকলা বিভাগের প্রভাষক জনাব মনিরা পারভীন হ্যাপি এবং বিশিষ্ট নৃত্যশিল্পী পার্থ প্রতীম দাস নৃত্য পরিবেশন করেন। সবশেষে নাট্যকলা ও পরিবেশনাবিদ্যা বিভাগের পরিবেশনায় পটনাট ‘কাজী নজরুল ইসলাম’ পরিবেশিত হয়।