| |

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩ দিনব্যাপী নজরুল জয়ন্তী’র বর্ণাঢ্য আয়োজনের দ্বিতীয় দিন

জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের ১১৯তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ৩ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আজ ১০-০৫-২০১৭ তারিখ বৃহস্পতিবার দ্বিতীয় দিন। বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘কনফারেন্স কক্ষে’ আলোচনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের মাননীয় চেয়ারম্যান প্রফেসর আবদুল মান্নান। প্রধান অতিথি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘অনেকে কবি নজরুলকে সাম্প্রদায়িতায় জড়িয়ে ফেলেন। …সজীব করিব মহাশ্মশান এর পরিবর্তে সজীব করিব গোরস্থান করা হয়েছিল। কবির এই লেখার বিকৃতি ঘটিয়ে কবিকে সাম্প্রদায়িক করার অপচেষ্টা চালায় কিছু বিপথগামী মানুষ।’ তিনি আরও বলেন, ‘সংগ্রাম করে উঠে এসেছেন কবি নজরুল। মানবধর্মই যার আসল ধর্ম। বৈষম্যহীন বাংলাদেশ নিশ্চিত করতে পারলেই কেবল কবির প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হবে।’

আলোচনা অনুষ্ঠানে সভাপতি হিসেবে বক্তব্য রাখেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান। সভাপতি তাঁর বক্তব্যে বলেন, ‘জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম ছিলেন নিপিড়ীত মানুষের কবি, তিনি ছিলেন সাম্যের কবি, তিনি ছিলেন সকলের কবি।’

বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোনালিসা দাস, সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের ডিন প্রফেসর ড. মো. নজরুল ইসলাম, হিসাববিজ্ঞান ও তথ্য পদ্ধতি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান প্রফেসর ড. সুব্রত কুমার দে এবং শিক্ষক সমিতির সধারণ সম্পাদক জনাব মো. শফিকুল ইসলাম।

এদিকে সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের কনফারেন্স কক্ষে আন্তর্জাতিক কনফারেন্স অনুষ্ঠিত হয়। কনফারেন্সে সভাপতি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান। ‘উপন্যাসের সাতন্ত্র্যে কাজী নজরুল ইসলাম’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন পশ্চিমবঙ্গের আসানসোল কাজী নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ড. মোনালিসা দাস। ‘নজরুলের প্রেমের গানে আনন্দ ও বেদনার স্বরূপ সন্ধান’ শীর্ষক প্রবন্ধ পাঠ করেন স্বরলিপিকার ও নজরুল গবেষক জনাব ইদ্রিস আলী। প্রবন্ধ দুইটির আলোচক হিসেবে আলোচনা করেন যথাক্রমে জাককানইবি‘র বাংলা ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের প্রফেসর ড. মো. মাহবুব হোসেন এবং সঙ্গীত বিভাগের প্রফেসর ড. মো. জাহিদুল কবীর।

আন্তর্জাতিক সেমিনারে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান, ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার ড. মো. হুমায়ুন কবীর, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষকম-লী, কর্মকর্তা এবং শিক্ষার্থীবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

ইন্সটিটিউট অব নজরুল স্টাডিজ ও চারুকলা বিভাগ আয়োজিত ‘নজরুল আর্ট ক্যাম্প’-এর শুভ উদ্বোধন করেন মাননীয় ভাইস-চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. এ এইচ এম মোস্তাফিজুর রহমান।

চারুকলা বিভাগ কর্তৃক আয়োজিত ৩ দিনব্যাপী বার্ষিক শিল্পকর্ম প্রদর্শনী- ২০১৮ চারুকলা বিভাগে অনুষ্ঠিত হয়। শতাধিক ছবি এই প্রদর্শনীতে স্থান পায়। শেষে ‘গাহি সাম্যের গান’ মঞ্চে বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত বিভাগের প্রযোজনায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে কবি নজরুলের গান, কবিতা, নৃত্য অনুষ্ঠিত হয়। বিশিষ্ট নজরুল সঙ্গীতশিল্পী ইয়াকুব আলী খান ও শারমিন সাথী ইসলাম সঙ্গীত পরিবেশন করেন। পারফরমেন্স আর্ট: ‘জাত বেজাত’ পরিবেশন করে নাট্যকলা ও পরিবেশনাবিদ্যা বিভাগ।

বি.দ্র: আগামী ২৫ মে ২০১৮ তারিখ শুক্রবার আন্তর্জাতিক কনফারেন্স, আলোচনা সভা ও নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে শেষ হবে নজরুল জয়ন্তী ২০১৮-এর অনুষ্ঠানমালা।