| |

জামালপুরে ইত্তেফাকের সাংবাদিক হালিম দুলালের বিরুদ্ধে ৫৭ ধারায় মামলা করায় তীব্র নিন্দা

জামালপুর প্রতিনিধি॥দৈনিক ইত্তেফাকের জামালপুর জেলা প্রতিনিধি হালিম দুলাল ও জামালপুর সদর সহকারী পল্লী উন্নয়ন কর্মকর্তা শবনম মোস্তারীর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগে ২০০৬ (সংশোধনী ২০১৩) সালের তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় আদালতে মামলা দায়ের করেছেন। জামালপুরের সাংবাদিকেরা গত ১২ মে শনিবার এক বিবৃতিতে মিথ্যা অভিযোগের প্রেক্ষিতে দায়ের করা মামলাটির বিষয়ে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে মামলাটি প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন। জানা গেছে, জামালপুর সদর উপজেলা বিআরডিবি কর্মকর্তা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে গত ৩০ এপ্রিল জামালপুরের চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের জামালপুর সদর আমলী আদালতে মামলাটি দায়ের করেছেন। আদালতের নির্দেশে জামালপুর সদর থানা পুলিশ মামলাটি নথিভুক্ত করে ইতিমধ্যে সংশ্লিষ্ট আদালতে অবহিত করলে আদালত আসামিদের বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেছেন। মিথ্যা অভিযোগে মামলা দায়েরের কথা জানতে পেরে সাংবাদিক হালিম দুলাল বিস্মিত হয়েছেন। বর্তমানে গ্রেপ্তার আতঙ্কে রয়েছেন। এদিকে মিথ্যা অভিযোগের প্রেক্ষিতে মামলাটি দায়েরের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন জামালপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি আজিজুর রহমান ডল, সাধারণ সম্পাদক ইন্ডিপেন্ডেন্ট টেলিভিশন ও ভোরের কাগজের সাংবাদিক দুলাল হোসাইন, সহ-সভাপাতি ও সময় টিভির সাংবাদিক জাহাঙ্গীর আলম, সহসভাপাতি জাহিদ আনোয়ার জাকির, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক আলী আজাদ মোল্লা, কার্যকরী কমিটির সদস্য আয়নাল হক কালাচান, দৈনিক সংবাদের সাংবাদিক সুশান্ত কুমার দেব কানু, বাংলাভিশন টিভির সাংবাদিক জাহিদ হাবিব, আরটিভির সাংবাদিক সুজিত রায়, প্রেসক্লাবের কর্য্যকরি সদস্য,বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার সাংবাদিক মোখলেছুর রহমান লিখন, দৈনিক পল্লীকণ্ঠ প্রতিদিনের সম্পাদক নুরুল হক জঙ্গী, দৈনিক সচেতনকণ্ঠের সম্পাদক মো. বজলুর রহমান, দৈনিক মালঞ্চবাজারপত্রিকার সম্পাদক হাতেম আলী খাদেম, দৈনিক কালের কণ্ঠের সাংবাদিক মোস্তফা মনজু, অনলাইন নিউজ পোর্টাল ডেইলি বাংলাদেশের সাংবাদিক মো. দেলোয়ার হোসেন, সাংবাদিক হাজি ইউছুফ আলী, দৈনিক বাংলাদেশের খবরের সাংবাদিক সৈয়দ শওকত জামান, দৈনিক ডেস্টিনির সাংবাদিক মো. আনোয়ার হোসেন, দৈনিক ভোরের পাতার সাংবাদিক মো. সানাউল্লাহ প্রমুখ। বিবৃতিতে সাংবাদিকেরা, বিআরডিবি কর্মকর্তা শিরিন আক্তারের নানা অনিয়ম ও দুর্নীতির বিভাগীয় তদন্ত চলমান রয়েছে। ওই কর্মকর্তা সন্দেহ বশত: ইত্তেফাক প্রতিনিধির বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ ফাঁস করার চাতুরতার আশ্রয় নিয়ে দুর্নীতির কবল থেকে নিজেকে রক্ষার জন্য একই অফিসের সহকারী বিআরডিবি কর্মকর্তা শবনম মোস্তারী এবং দৈনিক ইত্তেফাকের সাংবাদিক হালিম দুলালকে হয়রানি করার উদ্দেশে এই মামলাটি দায়ের করেছেন। উল্লেখ্য যে সাংবাদিক হালিম দুলাল ওই কর্মকর্তা শিরিন আক্তারের অনিয়ম ও দুর্নীতির কোনো সংবাদ বা দুর্নীতির তদন্ত বিষয়ক কোনো প্রতিবেদন দৈনিক ইত্তেফাকসহ কোথাও প্রকাশও করেননি। বিবরিতি দাতাগণ ওই কর্মকর্তা শিরিন আক্তার তার স্বামী জামালপুর চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের একজন জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট হওয়ায় তার প্রভাব খাটিয়ে ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে নেওয়ার জন্যই সম্পূর্ণ উদ্দেশ্য প্রণোদিত হয়ে মামলাটি দায়ের করেছেন বলে বিবরিততে উল্লখ কওে অবিলম্বে মিথ্যা মামলাটি প্রত্যাহার করে নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন।