| |

বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির বিকল্প বাজেট প্রস্তাবনা নিয়ে ময়মনসিংহ প্রেসব্রিফিং অনুষ্ঠিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বাংলাদেশ বিনির্মাণে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির বাজেট প্রস্তাবনা ২০১৮-২০১৯ নিয়ে গতকাল শনিবার সকালে ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবে এক প্রেসব্রিফিং অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সাবেক সহ সভাপতি অধ্যাপক তোফাজ্জল হোসেনের সভাপতিত্বে অধ্যাপক ডঃ মোঃ সাইদুর রহমান, অধ্যাপক পার্থ স্বারথী ঘোষ, ময়মনসিংহ প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন আহম্মেদ এ সময় উপস্থিত ছিলেন।
বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতির সভাপতি আবুল বারাকাত ও সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন আহমেদের পক্ষে প্রস্তাবিত বিকল্প বাজেট ২০১৮-১৯ একযোগে ঢাকাসহ চট্টগ্রাম, রাজশাহী, খুলনা, দিনাজপুর, যশোর, কুষ্টিয়া, নড়াইল, নোয়াখালী, চাদপুরসহ ময়মনসিংহে প্রেস কনফারেন্সের মাধ্যমে বাংলাদেশ অর্থনীতি সমিতি জাতীয় বাজেটকে সামনে রেখে নানা দিক, আলোচনা, সমালোচনা ও সরকারের প্রতি প্রস্তাবনা তুলে ধরেন। মোট নয়টি অনুচ্ছেদে এ বিকল্প বাজেট প্রস্তাবনা পেশ করা হয়। বাংলাদেশ স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশের তালিকায় প্রবেশ করেছে। তাই মাবন সম্পদ উন্নয়নে শিক্ষাখাতে আরো অধিহারে বিনিয়োগের প্রস্তাবনা করা হয়। পাশপাশি বেকারত্বহ্রাস, অনুন্নয়নমূলক খরচ কমাতে বাজেটে সুস্পষ্টতা করণ, রাজস্ব আহরণে ভ্যাট, কর আদায়ে হয়রানী রোধসহ নানা দিক তুলে ধরা হয়। বাংলাদেশ অর্থনীতির সমিতির প্রস্তাবিত বাজেটের আকার দেওয়া হয়েছে ১২ লক্ষ ১৬ হাজার ৪শত কোটি টাকা। অবশ্য অর্থমন্ত্রী জাতীয় বাজেট করতে যাচ্ছেন ৪ লাখ ৯০ হাজার কোটি টাকা। অর্থনীতি সমিতির প্রস্তাবনা বাজেট হলো জাতীয় বাজেটের আড়াইগুন বেশী। প্রস্তাবিত এ বাজেটে রাজস্বখাত থেকে ৯ লাখ ৯০ হাজার ৮২০ কোটি টাকা আসবে, অর্থাৎ মোট বাজেটের ৮১ শতাংশই রাজস্বখাত থেকে আসবে বলে তারা প্রস্তাবনা করেন। আর বাকি ১৯ শতাংশ অর্থাৎ ২ লক্ষ ২৫ হাজার ৫৮০ যোগান দিবে সরকারী-বেসরকারী যৌথ অংশিদারিত্ব প্রতিষ্ঠান। এ প্রস্তাবনা বাজেটে ঘাটতি অর্থায়নে বৈদেশিক ঋনের কোন ভুমিকা রাখা হয়নি।