| |

রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপকে ঘিরে নান্দাইলে ব্রাজিল-আর্জেটিনার পতাকার সমারোহ

ইছমত আরা বেগম, নান্দাইল প্রতিনিধি: ফুটবল বিশ্বকাপ যতই এগিয়ে আসছে ময়মনসিংহের নান্দাইল পৌরসভা সহ ১৩টি ইউনিয়নের বিভিন্ন ভবন, বিলবোর্ড, বাড়ির ছাদ কিংবা দোকানঘরের উপর ব্রাজিল-আর্জেটিনার পতাকা উত্তোলনের হিড়িক পড়েছে। সেখানে ব্রাজিল এবং আর্জেটিনার পতাকা বেশি নজরে এলেও অন্যান্য দেশের পতাকাও রয়েছে। বিশেষ করে স্পেন, জার্মানী ও পর্তুগাল। তবে প্রতিটি প্রিয় ফুটবল দলের পতাকার উপরে নিজ দেশের সম্মানসূচক ঠাঙ্গানো হয়েছে বাংলাদেশের পতাকা। উপজেলার প্রতিটি দর্জি ও কাপড়ের দোকানে চলছে প্রিয় দলের প্রতাকা বানানো ও কেনার কাজ। আবার রাশিয়া ফুটবল বিশ্বকাপে অংশগ্রহনের বিভিন্ন ফুটবল দলের দেশের পতাকা নিয়ে বাজারে বাজারে সমর্থকদের মাঝে বিক্রি করছে পতাকা ব্যবসায়ীরা। প্রতি ৪ বছর পর পর ফুটবল বিশ্বকাপ খেলা শুরু হয়। ফুটবল বিশ্বকাপ এলেই বাজারের প্রতিটি চায়ের দোকান, বাসা-বাড়িতে ও স্কুল-কলেজ পড়–য়া ছাত্রছাত্রী সহ বিভিন্ন পেশার শ্রমজীবি মানুষের মাঝেও প্রিয় ফুটবল দলের আলোচনা-সমালোচনার ঝড় উঠে। একদিকে যেমন ব্রাজিল সমর্থক তেমনি অন্যদিকে আর্জেটিনার সমর্থকও রয়েছে। মূলত বাংলাদেশে এ দুটি দলেরই সমর্থক বেশী দেখা যায়। ৫ম শ্রেণী পড়ুয়া ছাত্র পাভেল সে একটি ব্রাজিলের পতাকা কিনেছে। তাকে জিজ্ঞাসা করলে সে জানায় এটি তার প্রিয় ফুটবল দলের পতাকা, সে এবং তার পরিবার ব্রাজিলের সমর্থক। সে ব্রাজিলিয়ান ফুটবলার নেইমারকে ভালোবাসে। অন্যদিকে আর্জেটিনার জার্সী পরিহিত আরেক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র আজিদ জানায়, সে আর্জেটিনার মেসির ভক্ত। সে মেসির ফুটবল খেলা খুব পছন্দ করে। কোন কোন সমর্থক দলের পরিচয় প্রকাশ করতে ২০ ফুট দৈর্ঘ্যের পতাকা বানিয়েছে। ছোট বড় পতাকায় ছেয়ে গেছে সমগ্র নান্দাইল উপজেলা ছাড়াও দেশের প্রতিটি জেলা-উপজেলায়। দর্জি কারিগর বাবুল মিয়া জানান, “আর্জেটিনার পতাকার চেয়ে ব্রাজিলের পতাকা তৈরীতে কষ্ট বেশী হয়। তবে আর্জেটিনার পতাকা, টিশার্ট বেশী বিক্রী হচ্ছে। তিনি আরও জানান, একটি পতাকা ৫০ টাকা থেকে শুরু করে এক থেকে ২ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রী করা হয়। যে যত বেশী দৈর্ঘ্যের পতাকা তেরী করবে তার খরচ বেশী পড়বে। এছাড়া নান্দাইল চৌরাস্তা বাজারের সাথী গার্মেন্টসের মালিক আদিল জানান, ব্রাজিল-আর্জেটিনার প্রতিটি টিশার্ট-গেঞ্জি ১৫০ টাকা থেকে শুরু করে হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রী হয় আর তা কাপড়ের গুনাগুণের উপর নির্ভর করে।” এছাড়া খেলোয়াড়দের ছবি সহ বিভিন্ন ফুটবল দলের ক্যালেন্ডার, পোস্টার বিক্রী করতে দেখা যাচ্ছে হকারদের। এ ব্যবসায়ী শুধু মৌসুমী ব্যবসার মত। খেলা শেষ হলেই ব্যবসা বন্ধ হয়ে যাবে। তবে ফুটবল বিশ্বকাপকে ঘিরে সমর্থক দলের মধ্যে এপর্যন্ত কোন ধরনের মারামারি বা আপত্তিকর ঘটনা ঘটে নাই।