| |

দেওয়ানগঞ্জ রেলস্টেশনে পরিচয়হীন প্রসুতি মা ফুটফুটে নবজাতক তিনদিন ধরে মশামাছি ও ধুলাবালিতে রয়েছে

মদন মোহন ঘোষ. দেওয়ানগঞ্জ থেকে
দেওয়ানগঞ্জ রেলস্টেশনে প্রসুতি মা ও তিনদিনের নবজাতক মশামাছি প্রচন্ড গরমে ধুলাবালিতে শুয়ে রয়েছে। স্টেশনের দায়িত্বরত কোন কর্মকর্তা এমনকি দুইদিন ধরে হাজার হাজার স্টেশনে চলাচল করছে। কিন্তু কাহারোও নজর পরে নাই প্রসুতি মা ও নবজাতকের দিকে।
শুক্রবার বিকালে যুগান্তরের এ প্রতিনিধি স্টেশন চত্বরে গেলে হঠাৎ চোখ পরে প্রসুতির দিকে। শুক্রবার বিকাল ৫টায় দেখা যায় স্টেশনের বিশ্রামাগারের বারান্দায় প্রসুতি মা ৩-৪দিনের ফুটফুটে ছেলে নবজাতককে নিয়ে নোংরা ছেড়া লাল কম্বলে শুয়ে রয়েছে। নবজাতকের মুখে কপালে চোখেমুখে বড় বড় মশা কামড়াচ্ছে ও মাছি উড়রছে। নবজাতকের হাতে কালো সুতার তাবিজ রয়েছে। প্রসুতি মাকে দেখতে উজ্জল শ্যামলা বয়স ২০-২৫বছরের মধ্যে। ববকাটা মাথার চুল। পড়নে বল প্রিন্টের স্যালোয়ার। মুখেকথা বলতে চায় না। হাত দিয়ে মশা মাছি তাড়ানোর চেষ্টা করছে। স্টেশনের ফল ব্যবসায়ীরা জানান. বৃহস্পতিবার রাত থেকে এ নবজাতক ও প্রসুতি মাকে দেখা যাচ্ছে। নবজাকতটি কোথায় ভূমিষ্ট হয়েছে তার খোজ পাওয়া যায় নাই। রাতে প্রসুতি দোকান থেকে পানি ও জুস কিনে খেয়েছে। বাড়ির কথা জিজ্ঞাসা করা হলে শুধু একবার বলেছিল জামালপুরে। স্টেশনের ট্রেনযাত্রী জনৈক মহিলা নবজাতককে দেখে বলেন এ বয়স ২-৩দিনের হবে। প্রসুতিটি সারাদিন না খেয়ে রয়েছে। তবে স্টেশনের যাত্রীদের ধারনা প্রসুতি মা মানসিক ভারসাম্যহীন হতে পারে। পিতৃপরিচয় জানা যায় নাই। সন্ধ্যায় ৭টায় এ সংবাদ লেখা সময় দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা এবং অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আমিরুল ইসলাম বিষয়টি জানালে তারা বলেন নবজাতক ও প্রসূতি মাকে উদ্ধার করে চিকিৎসা ব্যবস্থা করা হবে।