| |

অসুস্থ আ.লীগ নেতার নামে প্রধানমন্ত্রীর বরাদ্দকৃত অনুদানের টাকা আত্মসাত !

গৌরীপুর  সংবাদদাতা ॥
প্যারলাইসিস রোগে আক্রান্ত আওয়ামী লীগ নেতা মোঃ হোসেন আলী (৫৬) নামে প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হতে মঞ্জুরীকৃত অনুদানের চেক প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাতের অভিযোগ পাওয়া গেছে। এক্ষেত্রে প্রকৃত ব্যক্তি সনাক্তকরণে ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে চরম অবহেলার অভিযোগ তুলেছেন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ। ভুক্তভোগী হোসেন আলী তার নামে মঞ্জুরকৃত টাকা ফেরত পেতে প্রশাসনিক কর্মকর্তাসহ মানুষের দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়াচ্ছেন। হোসেন আলী ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার ২নং গৌরীপুর ইউনিয়নের গজন্দর গ্রামের বছির উদ্দিনের পুত্র। তিনি ওই ইউনিয়নের ৫ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের টানা দু’বারের ভোটিংয়ে নির্বাচিত সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। হোসেন আলী জানান, গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে মিছিলে অংশ নিয়ে হঠাৎ পড়ে গিয়ে তিনি মেরুদন্ডে মারাতœক আঘাত পেয়ে আহত হন। এতে প্যারালাইসিস রোগে আক্রান্ত হলে তার দু’পা ও মেরুদন্ড অচল হয়ে পড়ে। টাকার অভাবে তার চিকিৎসা ব্যাহত হচ্ছিল। নিরুপায় হয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বরাবরে গত বছর আর্থিক সাহায্য চেয়ে একটি আবেদন করেন তিনি। স্থানীয় এমপি বীরমুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতৃবৃন্দের সুপারিশে প্রেক্ষিতে হোসেন আলীর নামে চলতি বছরে ১৬ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিল হতে এককালীন ৩০ হাজার টাকা আর্থিক সাহায্য বরাদ্দ করা হয় (প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের স্মারক নং-০৩.০০৭.০৩৭.০০.০০.৯৯.২০১৮.(অংশ-৯৮)/৫৮০)। উপজেলা নির্বাহী অফিসার কার্যালয়ের মাধ্যমে এ সাহায্য প্রাপ্তির বিষয়ে পত্র পেয়ে বৃহস্পতিবার (২৮ জুন) ময়মনসিংহ জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের সাধারণ শাখায় যোগাযোগ করেন তার স্ত্রী মিনারা খাতুন। এসময় ওই শাখার অফিস সহকারি আব্দুল বারেক বলেন, উক্ত বরাদ্দকৃত টাকার চেক হোসেন আলী উত্তোলন করে নিয়ে গেছেন। এ কথার শুনার পর তিনি হতবাক হয়ে পড়েন এবং স্থানীয় সাংবাদিকদের প্রতারণার বিষয়টি অবগত করেন।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সাধারণ শাখার অফিস সহকারি আব্দুল বারেক জানান, উল্লেখিত ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের ইউপি মেম্বার হারুন অর রশিদের প্রত্যয়নের মাধ্যমে হোসেন আলীকে সনাক্ত করে ৩ দিন আগে তাকে চেক প্রদান করা হয়েছে। এসময় এই হোসেন আলী যে সেই প্রকৃত হোসেন আলী নয় এ বিষয়টি অবগত করার পর তিনি সাংবাদিকদের বলেন বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।
২নং গৌরীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আনোয়ার হোসেনকে বিষয়টি অবগত করা হলে তিনি জানান, হারুন অর রশিদ নামে কোন মেম্বার তার ইউনিয়নে কোন ওয়ার্ডে নেই এবং যে হোসেন আলীকে চেক প্রদান করা হয়েছে গজন্দর গ্রামে ওই প্রতারকের কোন সন্ধান খুঁজে পাওয়া যায়নি।
গৌরীপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ অভিযোগ করে বলেন কর্তব্য কাজে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের চরম অবহেলার কারনে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক প্রাপ্তি থেকে বঞ্চিত হয়েছেন প্যারালাইসিস রোগে আক্রান্ত আ.লীগ নেতা হোসেন আলী। এ প্রতারনার ঘটনার সাথে প্রশাসনের অসাধু কর্মকর্তা/কর্মচারীদের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। এসময় তিনি উক্ত প্রতারনার ঘটনার সাথে জড়িদের বিরুদ্ধে তদন্তপূর্বক আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের দাবি জানান।
গৌরীপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ফারহানা করিম জানান, আমার প্রত্যয়ন ব্যতিত জেলা প্রশাসকের সাধারন শাখার অফিস সহকারি আব্দুল বারেক উল্লেখিত চেকটি প্রদান করতে পারেন না। বিষয়টি খতিয়ে দেখা হবে।