| |

ময়মনসিংহ শহরে স্থাপিত সিসি ক্যামেরার সহায়তায় ৫ অটো চোর ডিবি’র হাতে গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার ॥ ঢাকা-ময়মনসিংহ হাইওয়ে সড়কের পর ময়মনসিংহ শহর সিসি ক্যামেরার আওতায় আসার সুফল পেতে শুরু করেছে শহরবাসী। গত ২৮ জুলাই শহরের প্রগ্রেসিভ স্কুলের সামনে থেকে প্রতারণামূলকভাবে ব্যাটারীচালিত একটি ইজিবাইক (অটো) কৌশলে চুরি হওয়ার ৬দিনের মধ্যে চোরচক্রের পাচ সদস্যকে গ্রেফতার করেছে ময়মনসিংহ ডিবি পুলিশ। এ সময় চোর চক্রের হেফাজত থেকে একটি মিনি ট্রাকও উদ্ধার করে পুলিশ। অটো চুরির ৬দিনের মধ্যে চোরচক্র গ্রেফতার হওয়ায় অটোর মালিক ও চালক কিছুটা হলেও আনন্দভোগ করছেন। এ ঘটনায় অটোর মালিক অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য শফিকুল ইসলাম ভুইয়া কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা দায়ের করেছেন।
প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে, অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য শফিকুল ইসলাম ভুইয়ার একটি ব্যাটারী চালিত অটো চালক শাহ আলম প্রতিদিনের মত শহরের বিভিন্ন রোডে ভাড়ায় চালিয়ে আসছে। গত ২৮ জুলাই গাঙ্গিনারপাড় থেকে জনৈক ব্যক্তি নিজেকে পুলিশ সদস্য বলে তাকে পুলিশ লাইনের উদ্দেশ্যে ভাড়ায় নিয়ে রওনা দেয়। পথিমধ্যে বিএনপি অফিসের সামনে থেকে আরেকজনকে উঠায়। পরে প্রগ্রেসিভ স্কুলের সামনে গেলে অটো থামিয়ে অটো চালককে নেমে অন্য এক ড্রাইভারকে ডেকে আনতে বলে। এ সময় অটো চালক তার অটো থেকে নামতে না চাইলে সে পুলিশের অফিসার দাবী করে অটো চালককে হুমকি দিয়ে আবারো ডেকে আনতে বলে। এতে অটো চালক অনেকটা পুলিশের ভয়েই তার অটো থেকে নামেন এবং কাউকে ঐ ব্যক্তিদের দেখানো মতে ডেকে আনতে যান। এ সুযোগে ঐ দুই ব্যক্তি অটো নিয়ে দ্রুত পালিয়ে যায়। পরে অটো চালক এসে তার অটোটি না পেয়ে চিৎকার করলেও আর অটো পায়নি। এ ব্যাপারে কোতোয়ালী মডেল থানায় জিডি নং ২৭৬৮ তাং ২৮/০৭/১৮ দায়ের হয়।
ঢাকা-ময়মনসিংহ হাইওয়ের পাশপাাশি ময়মনসিংহ জেলা শহরেও সিসি ক্যামেরা বসানো হওয়ায় অটোর মালিক অবসরপ্রাপ্ত সেনা সদস্য শফিকুল ইসলাম নিরূপায় হয়ে জেলা পুলিশের মিডিয়া সেন্টারে স্থাপতি পুলিশের সিসি সংগ্রহের মাধ্যমে তার অটো উদ্ধারে তৎপর হন। জেলা পুলিশের সিসি ক্যামেরার সহায়তায় চুরি হওয়া অটো সনাক্ত এবং চোরদের সনাক্ত করতে সক্ষম হয় ডিবির এলআইসি বিভাগ। এদিকে পুলিশের সিসি ক্যামেরার সনাক্তমতে আবারো ঐ চোরচক্র গত ২ আগষ্ট ময়মনসিংহ শহরের গাঙ্গিনার পাড়ে এসে নানা কৌশলে ঘুরতে থাকে। এ সময় ডিবি পুলিশ চোর চক্রেও বাবু মিয়া, জাহাঙ্গীর, কবির ওরফে ওয়াহিদ, মাজহারুল ইসলাম ও হারুন নামের ৫জনকে গ্রেফতার করে। এ সময় তাদের কাছ থেকে একটি মিনি ট্রাক উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় চোরদেও বিরুদ্ধে কোতোয়ালী মডেল থানায় মামলা হয়েছে। ডিবি পুলিশের এসআই পরিমল চন্দ্র দাস জানান, গ্রেফতারকৃতরা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে পুলিশকে জানান, তারা ঐ অটোসহ একই কৌশলে আরো অনেক অটো চুরি করেছে এবং শাহ আলমের কাছ থেকে নেওয়া অটোটি বিক্রি করে দিয়েছে। বৃহস্পতিবার দিনও তারা অটো চুরির লক্ষ্যেই এসেছিল।
উল্লেখ্য ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয় নুরুল ইসলাম ময়মনসিংহে যোগাদানের পরই ঢাকা-ময়মনসিংহ হাইওয়ে রোডে সড়ক দুর্ঘটনা রোধসহ এ রোডে নানা অপরাধ প্রবনতা কমানোর লক্ষ্যে পুরো রাস্তা (ময়মনসিংহের অংশ) সিসি ক্যামেরার আওতায় আনেন। পরবর্তী চৌকুস এ পুলিশ কর্মকর্তা ময়মনসিংহ শহরে চুরি, ছিনতাই, খুনসহ নানা অপরাধ সনাক্ত করতে পুরো শহরকে সিসি ক্যামেরার আওতায় আনার পরিকল্পনা নেন। এ দায়িত্বশীল পুলিশ কর্মকর্তার উদ্যোগ বাস্তবায়ন পুরো শেষ না হলেও শহরের অধিকাংশ এলাকা সিসি ক্যামেরার আওতায় চলে আসে। আর এ সুফল পেতে শুরু করেছেন ময়মনসিংহবাসী।