| |

নিকলীতে মাদ্রাসা ছাত্রী অপহরণ চার দিনেও উদ্ধার হয়নি

নজরুল ইসলাম খায়রুল, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি: এক মাদ্রাসা ছাত্রীকে অপহরণের দায়ের গত মঙ্গলবার নিকলী থানায় ৫ জনকে আসামী একটি অপহরণ মামলা করা হয়েছে। অপহৃত মাদ্রাসা ছাত্রী শরমীন আক্তার (১৫) বেতিরচর দাখিল মাদ্রাসার ৯ম শ্রেণীর ছাত্রী ও গুরুই ইউনিয়নের গুরুই মসজিদপাড়া গ্রামের তাজুল ইসলামের মেয়ে। পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা যায় গত রবিবার (১৫ নভেম্বর) সকালে প্রতিদিনের মত শরমিন আক্তার বেতিরচর মাদ্রাসায় যাওয়ার জন্য রওনা হয়ে মাদ্রাসার দক্ষিণ পাশের সড়কে পৌঁছলে সিএনজি নিয়ে আগে থেকে উৎপেতে থাকা একই গ্রামে মিন্টু মিয়া (২৫), তৌহিদ (২২), লাল মিয়া (২৪) ও আরো ২ জন অজ্ঞাত ব্যক্তির সহযোগিতায় জোর পূর্বক শরমীন আক্তারকে সিএনজিতে উঠিয়ে অপহরণ করে নিয়ে যায়। শরমীন আক্তারের পিতা তাজুল ইসলাম জানান, তার মেয়ে মাদ্রাসায় আসা যাওয়ার পথে একই গ্রামের সেকান্দর মিয়ার পুত্র মিন্টু মিয়া তাকে নানাভাবে উত্যক্ত করতো কিন্তু মেয়ের ও মেয়ের লেখাপড়ার কথা চিন্তা করে তিনি প্রতিবাদ করার সাহস পাননি। নিকলী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) এ.কে.এম মাহবুব আলম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, অপহৃত মেয়েকে উদ্ধার ও আসামীদের গ্রেফতারের ব্যাপারে পুলিশ অভিযান অব্যাহত রয়েছে।