| |

হালুয়াঘাটে জামিনে এসে বিবাদীরা শিশু পুত্রসহ বাদীকে হত্যার হুমকির অভিযোগ

হালুয়াঘাট (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি : হালুয়াঘাটে জামিনে এসে বিবাদীরা শিশু পুত্রসহ বাদীকে হত্যার হুমকি প্রদান করছেন বলে মামলার বাদী পক্ষের সদস্যরা অভিযোগ করেন।
জানা যায়, উপজেলার বিলডোরা ইউনিয়নের নিশ্চিন্তপুর গ্রামের মৃত মফিজ উদ্দিনের পুত্র আবুল কাসেম, স্ত্রী ফাতেমা ও মেয়ে ছালমাকে পূর্ব বিরোধের জের ধরে গত ১৯ জুন বিকালে একই গ্রামের রুপচানের বাড়ির পার্শ্বে প্রতিবেশী আবু বক্কর সিদ্দিক এর পুত্র মামুন,ইলিয়াস ও ইয়াছিন গং দেশীয় অস্ত্রেসস্ত্রে সজিত হয়ে হামলা চালিয়ে রক্তাক্ত হাড় ভাঙ্গা জখম করেন। পরে স্থানীয়রা আহতদের উদ্বার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক উন্নত চিকিৎসার জন্য ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
এ ঘটনায় আবুল কাসেম আবু বক্কর সিদ্দিকগংদের ১৩ জনের নামে গত ২৪ জুন হালুয়াঘাট থানায় মামলা দায়ের করেন। উক্ত মামলায় প্রধান বিবাদীগণ আদালতে হাজির না হলেও অন্যান্য বিবাদীগণ সম্প্রতি আদালত থেকে জামিনে এসে মামলার বাদীকে হত্যার হুমকি প্রদান করছেন।
ঘটনার প্রায় দেরমাস চিকিৎসা নেওয়ার পর গত ৭ আগস্ট নিজ বাড়িতে ফেরার পর বিবাদীগণ মামলা প্রত্যাহার করার জন্য স্থানীয় প্রভাবশালীদের সহযোগীতায় হুমকি প্রদান করেন। মামলা প্রত্যাহার না করলে আবু বক্কর সিদ্দিকগং ৪ বছরের শিশুপুত্রকে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলবেন বলে বাদীর পরিবারের সদস্যরা সাংবাদিকদের জানান।
ভুক্তভোগী আবুল কাসেম জানান, তার স্ত্রীর ফাতেমার হাত ভেঙ্গে ফেলেছেন পতিপক্ষের ব্যক্তিগণ তার স্ত্রীর হাতে দুটি রড দিয়ে ডাক্তারগণ ১৮টি সেলাই প্রদান করেছেন। জীবনের বাকী সময়ে এক গ্লাস পানি ভরে খেতে পারবেন না বলে কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন। আবু বক্কর সিদ্দিকগং মামলা প্রত্যাহার না করলে তার শিশুপুত্রসহ তাকে হত্যা করে লাশ গুম করে ফেলবেন বলে হুমকি প্রদান করছেন। ঘটনার দের মাস পার হলেও থানা পুলিশ প্রধান আসামীদের আটক করছেন না। দ্রুত উক্ত আসামীদের আটক ও পরিবারের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের নিকট দাবী জানান।
এ ঘটনায় আবু বক্কর সিদ্দিকগংদের সাথে যোগাযোগ করার চেষ্টা করেও তাদের বক্তব্য পাওয়া যায়নি।
এ ঘটনায় থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা জাহাঙ্গীর তালুকদার জানান, ঘটনাটি তিনি অবগত নন, তবে আবুল কাসেম যাদের নামে মামলা করে ছিলেন তাদের অনেকেই আদালত থেকে জামিনে রয়েছেন । অন্যান্যদের আটকের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে।