| |

মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত স্থায়ী কমিটির ২৯ তম বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো বিএফআরআই-তে

স্টাফ রিপোর্টার ঃ দশম জাতীয় সংসদের মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত স্থায়ী কমিটির২৯ তম বৈঠক গতকাল বুধবার (১২ সেপ্টেম্বর) বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট (বিএফ আর আই) এর সদর দপ্তর ময়মনসিংহে অনুষ্ঠিত হয়েছে।
এই প্রথম বিএফ আর আই-তে মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রনালয় সর্ম্পকিত স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হলো। কমিটির চেয়ারম্যান বাগেরহাট-২ আসনের সংসদ সদস্য মীর শওকাত আলী বাদশা এর সভাপতিত্বে এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন কমিটির সদস্য মৎস্য ও প্রাণী সম্পদ মন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দ, ইফতিকার উদ্দিন তালুকদার পিন্টু এমপি, এডভোকেট মুহাম্মদ আলতাফ আলী এমপি, এডভোকেট শামছুন নাহার বেগম এমপি । আরো উপস্থিত ছিলেন উক্ত মন্ত্রনালয়ের সচিব মোঃ রইছ উল আলম মন্ডল, মন্ত্রনালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ, সংসদ সচিবালয়ের কর্মকর্তা ও মন্ত্রনালয়ের আওতাধীন সংস্থা প্রধানগণ। বৈঠকের শুরুতেই বিএফ আর আই এর মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহ্মুদ প্রতিষ্ঠানটির সার্বিক কার্যক্রমের উপর পাওয়ার পয়েন্ট উপস্থাপন করেন। উপস্থাপনার পর বিস্তারিত আলোচনায় সরকারের উন্নয়ন দর্শন ও এসডিজি-এ উল্লিখিত লক্ষ্যমাত্রা অর্জনের নিমিত্ত ২০১২-২০১৩ অর্থ বৎসরকে ভিত্তিবছর ধরে ৭ম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনায় (২০১৬-২০২০) মৎস্য সেক্টরে অর্জিতব্য লক্ষ্য নির্ধারণ করা এবং নির্ধারিত লক্ষ্য সমূহ অর্জনে মৎস্য ও প্রাণীসম্পদ মন্ত্রনালয়কে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশ করা হয়। সাম্প্রতিকালে মৎস্য গবেষণার ক্ষেত্র ও পরিধি বৃদ্ধি পাওয়ায় মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউটের প্রস্তাবিত ৪টি কেন্দ্র ও ৬টি উপকেন্দ্র এবং সকল কেন্দ্র ও উপকেন্দ্রের জন্য প্রয়োজনীয় নতুন পদ সৃজনসহ জনবল বৃদ্ধি করার জন্য কমিটি সুপারিশ করে।
দেশের মৎস্য সম্পদ উন্নয়নে জাতীয় চাহিদা নিরিখে গবেষণা পরিচালনা ও প্রযুক্তি উদভাবন এবং গবেষণালব্দ প্রযুক্তি প্রয়োগের মাধ্যমে দেশের মাছের উৎপাদন বৃদ্ধি ও পাশাপাশি আমিষের চাহিদা পূরণ, গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কর্মসংস্থানের নতুন সুযোগ সৃষ্টিসহ রপ্তানি আয় বৃদ্ধি করা ও জীব প্রযুক্তি ব্যবহারের মাধ্যমে মাছের উন্নত জাত উদ্ভাবন, দেশিয় প্রজাতি সংরক্ষণ, মাছ/চিংড়ির রোগ প্রতিকারের উন্নত কলাকৌশল উদ্ভাবনের বিষয়েও কমিটি সুপারিশ করে।
এছাড়া মুক্তা প্রকল্প, হাসের হ্যাচারী প্রকল্পের মেয়াদ বৃদ্ধি ও কর্মকর্তা কর্মচারীদের রাজস্ব খাতে স্থানান্তরের সুপারিশ করা হয়।