| |

জামালপুরে আওয়ামী লীগের বিশাল জনসভা অনুষ্ঠিত

জামালপুর প্রতিনিধি॥আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে এই প্রথমবারের মতো একটি জনসভা আয়োজনের মধ্য দিয়ে জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগ ভোটের রাজনীতিতে নৌকা প্রতীকের বিজয়ের লক্ষ্যে আনুষ্ঠানিক প্রচারণা শুরু করেছে। জেলা আওয়ামী লীগের সার্বিক নির্দেশনায় জামালপুর সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ গত ৬ অক্টোবর শনিবার বিকেলে স্থানীয় বাংলাদেশ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ জনসভার আয়োজন করে।

জানা গেছে, জনসভা আয়োজনকে ঘিরে সদর উপজেলার কেন্দুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগসহ পাশর্^বর্তী কয়েকটি ইউনিয়ন থেকে আওয়ামী লীগের একাধিক মনোয়ন প্রত্যাশীদের সমর্থকরা নৌকা প্রতীক, মুক্তিযুদ্ধের ভাস্কর্যসহ নানা সাজ সজ্জায় জনসভায় অংশ নেয়। ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ছাড়াও জেলা আওয়ামী লীগ ও বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের শীর্ষ পর্যায়ের অধিকাংশ নেতা-কর্মীরা এ জনসভায় যোগ দেন।
জনসভার প্রধান অতিথি বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম টানা প্রায় এক ঘন্টা সময় ধরে বক্তব্য রাখেন। তিনি তাঁর বক্তব্যে বিএনপি-জামাত জোট সরকারের সময়কার সীমাহীন দুর্নীতি এবং আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের হত্যা, নির্যাতনসহ সারা দেশের অস্থিতিশীল পরিস্থিতির বিস্তারিত তুলে ধরে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের সতর্ক করে বলেন, ‘বিএনপি আবারও আন্দোলন সহিংসতার নামে দেশকে পিছিয়ে দেওয়ার ষঢ়যন্ত্র করছে। সেই ষড়যন্ত্র মোকাবেলায় প্রতিটি নেতা-কর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থাকার আহব্বান জানান।

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেলে পরিণত হয়েছে।
বর্তমান সরকারের আমলে জামালপুর জেলায় ৫০ হাজার কোটি টাকার উন্নয়ন কাজ চলমান রয়েছে বলে জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী নেতা-কর্মীদের উদ্দেশে বলেন, জামালপুরের পাঁচটি আসনই শেখ হাসিনাকে উপহার দিতে চাই।’
আওয়ামী লীগের এ উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে শেখ হাসিনাকেই আবারো প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশের দায়িত্ব দিতে হবে, এ জন্য সকলকে নৌকায় ভোট দেওয়ার আহব্বান জানান।
কেন্দুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ফজলুল হক নুরলের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত জনসভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন জামালপুর সদর আসনের সংসদ সদস্য মো. রেজাউল করিম হীরা, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আইনজীবী মো. বাকী বিল্লাহ, সহসভাপতি সৈয়দ আতিকুর রহমান ছানা, আইনজীবী জাহিদ আনোয়ার, অধ্যাপক আশরাফ হোসেন তরফদার ও আইনজীবী আমানুল্লাহ আকাশ, সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফারুক আহাম্মেদ চৌধুরী, জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য প্রকৌশলী মোজাফ্ফর হোসেন ও সাইদুর রহমান শেলী, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. এম এ মান্নান খান ও সাংগঠনিক সম্পাদক খালেদুজ্জামান প্রদীপ, কেন্দুয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব প্রমুখ।
পরে জনসভার মূল আলোচনা সভা শেষে বাউল সঙ্গীত শিল্পী রিঙ্কু ও শাহনাজ বেলী গান গেয়ে গভীর রাত পর্যন্ত হাজার হাজার দর্শকদের মুগ্ধ করেন।