| |

একটি টয়লেট, একটি স্বপ্নের দিকে একটু এগিয়ে যাওয়া

ঢাকা প্রতিনিধি ঃ নেত্রকোনা জেলার সদর উপজেলার মদনপুর ইউনিয়নের প্রত্যন্ত নন্দীপুর সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা ৩৩২ জন। শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মচারী সহ রোজ ৪০০ জনেরও অধিক মানুষের প্রতিদিন আনাগোনা এ স্কুলটিতে। এই চার শতাধিক মানুষের কমপক্ষে ৮০ শতাংশই নারী। এই ৮০ ভাগ নারী সংখ্যার ৯০ ভাগই স্কুলের শিক্ষার্থী। এই ৪ শতাধিক মানুষের নিত্যনৈমিত্তিক স্যানিটেশনের ব্যবস্থা বলতে সম্বল ছিলো একটি মাত্র অর্ধপরিত্যক্ত টয়লেট। এর মধ্যে মাসিক বান্ধব টয়লেটের কথা তো কল্পনা করাই অসম্ভব ছিল। ডরপ-এর ঋতু প্রকল্প কাজ শুরু করার পর এখানকার সাধারণ জনগণ পর্যন্ত বুঝতে পারে মাসিক বান্ধব টয়লেটের গুরুত্ব। মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের সম্মানিত চেয়ারম্যান মহোদয় এই গুরুত্ব অনুধাবন করে এখানে টয়লেট নির্মানের জন্য যাবতীয় সহযোগিতার আশ্বাস দেন। খুবই অল্প সময়ের মধ্যে টয়লেট স্থাপনের প্রয়োজনীয় সহযোগিতার জন্য বিভিন্ন দপ্তরের দ্বারস্থ হন। মাননীয় উপজেলা চেয়ারম্যান উনার প্রতিশ্রুতি বাস্তবায়নে এগিয়ে এসে সদর উপজেলার অনুকুলে প্রাপ্ত বরাদ্দ থেকে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের জাতীয় স্যানিটেশন প্রকল্প (৩য় পর্যায়) এর মাধ্যমে টয়লেট নির্মানের জন্য “নন্দীপুর সোনার বাংলা উচ্চ বিদ্যালয়” এর নাম অনুমোদন করেন। এরপর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তর, নেত্রকোনা সদর উপজেলার সার্বিক তত্ত্বাবধানে স্কুলে একটি মাসিক বান্ধব টয়লেট এর স্বপ্ন বাস্তবায়নের কাজ শুরু হয় এখানে। স্বপ্নকে সামনে এগিয়ে নিতে স্কুলের প্রধান শিক্ষক, সহকারি শিক্ষক, অন্যান্য কর্মচারীদের আন্তরিকতার অভাব ছিলোনা। গত ২৪/১০/২০১৮ ইং তারিখে টয়লেটটি ব্যবহারের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। নিজ হাতে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের উপ-সহকারি প্রকৌশলী জনাব সুব্রত সরকার, প্রধান শিক্ষক জনাব মোঃ আবুল হাসান, সহকারি শিক্ষকবৃন্দ, অন্যান্য কর্মচারীবৃন্দ, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ, জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদপ্তরের মদনপুর ইউনিয়নের মাঠকর্মী মোঃ রেজাউল হক এবং ডরপ-ঋতু প্রকল্পের কর্মকর্তা মোহাম্মদ মঞ্জুরুল ইসলাম ও আসমা খাতুন এর উপস্থিতিতে টয়লেটটির শুভ উদ্বোধন করেন ১২নং মদনপুর ইউনিয়ন পরিষদের মাননীয় চেয়ারম্যান জনাব ফরিদ আহমেদ ফকির। এরপর উপস্থিত সকলেই স্কুলের ছাত্র-ছাত্রীদের উদ্দেশ্যে স্যানিটেশন সচেতনতামূলক আলোচনা করেন এবং দেয়ালে স্যানিটেশন সচেতনতা নিয়ে বিভিন্ন লেখা পরিদর্শন করেন। একটি স্কুলে একটি ছোট্ট স্বপ্ন বাস্তবায়নের জন্য ¯’ানীয় ব্যাক্তিবর্গ, নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, সরকারি দপ্তর, বেসরকারি সংস্থা সবার সহযোগিতায় ছোট্ট একটি স্বপ্নকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার এ এক অনন্য উদাহরণ। এভাবে যদি একটু একটু করে সবাই স্বতঃস্ফুর্তভাবে এগিয়ে আসে তবেই না সারা দেশে হাজারটা এমন স্বপ্ন রোজ বাস্তবায়ন করা সম্ভব।