| |

প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ একা গড়তে পারবেনা -জেলা প্রশাসক

সৌমিন খেলন : মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ডিজিটাল বাংলাদেশ একা গড়তে পারবেনা। বলেছেন, নেত্রকোনা জেলা প্রশাসক ড. তরুণ কান্তি শিকদার। যোগ করেন, দেশের জনগণ যদি নিজে থেকে ডিজিটাল সেবার অন্তর্ভূক্ত না হয়। ডিজিটাল সেন্টার ৫ম বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষ্যে নেত্রকোনা জেলা প্রশাসনের আয়োজনে ও প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের একস্সে টু ইনফরমেশন (এটুআই) প্রোগামের সহযোগিতায় সোমবার (৩০ নভেম্বর) দুপুরে, ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময় অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ই-সেবার গুরুত্ব ও সুবিধা ভোগ করতে হলে প্রত্যেককেই ই-সেবা সম্পর্কে জানা ও ব্যবহারের আগ্রহ তৈরী করতে হবে। তিনি আরও জানান, সকল স্তরে মানুষের জীবনযাত্রার মান উন্নয়ন, কর্মক্ষেত্রে নাগরিক বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধাসহ দেশকে গতিশীল করার লক্ষেই মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গিকার। এসময়, উপস্থিত সকলকে প্রধানমন্ত্রীর স্বপ্নের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার শরীক হওয়ারও আহবান জানান জেলা প্রশাসক। মোক্তারপাড়া এলাকার জেলা পাবলিক হলে অভিজ্ঞতা বিনিময় অনুষ্ঠান হয়। অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আনোয়ার হোসেন আকন্দের সভাপতিত্বে এতে বিশেষ অতিথির বক্ত্য রাখেন, পুলিশ সুপার (এসপি) জয়দেব চৌধুরী। জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এ.কে এম রিয়াজ উদ্দিন, পল্লী বিদ্যুতের জেনারেল ম্যানেজার (জিএম) মজিবুর রহমান, জেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদের ডেপুটি কমান্ডার আলহাজ্ব আব্দুল মতিন, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা ওসমান গণি তালুকদার, প্রেসক্লাব সম্পাদক এম. মুখলেছুর রহমান খান অতিথিদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন। এর আগে পৌর শহরের কুরপাড় এলাকাস্থ জেলা প্রশাসক কার্যালয় থেকে এক আনন্দ শোভাযাত্রা বের হয়। পাবলিক হল মিলনায়তনের সামনে শোভাযাত্রা থেকে অনুষ্ঠানের প্রধান ও বিশেষ অতিথিবৃন্দ বেলুন উড়িয়ে ডিজিটাল সেন্টার ৫ম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন। পরে উদ্যেক্তাদের অভিজ্ঞতা বিনিময়ের আগে প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর কেক কাটেন জেলা প্রশাসক ড. তুরুণ কান্তি শিকদার। ডিজিটাল সেন্টারে উদ্যোক্তা হিসেবে নিজেদের অভিজ্ঞতার কথা তোলে ধরেন, মনিরুজ্জামান, শহীদুল্লাহ, নাসরীন আক্তারসহ আরো অনেকে।