| |

মোহনগঞ্জে শিক্ষার্থীদের মাঝে শিক্ষা বৃত্তি ও শ্রেষ্ঠ শিক্ষক সম্মাননা প্রদান

শনিবার মোহনগঞ্জ উপজেলায় পঞ্চম শ্রেণির ১০ জন মেধাবী শিক্ষার্থীকে এককালীন শিক্ষা বৃত্তি ও একজন শিক্ষককে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক পদক প্রদান অনুষ্ঠান স¤পন্ন হয়েছে। মোহনগঞ্জ সাধারণ পাঠাগার মিলনায়তনে উক্ত অনুষ্ঠান আয়োজন করে জামেদা বেগম মেমোরিয়াল ট্রাস্ট। অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মোমেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. শহীদ ইকবাল। বিশেষ অতিথি ছিলেন দৈনিক সমকাল ময়মনসিংহ ব্যুরোর স্টাফ রিপোর্টার মীর গোলাম মোস্তফা, সমাজকর্মী ও ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ লায়ন মো. এখলাস উদ্দিন খান, শিক্ষাবিদ আবু মোহাম্মাদ সায়েম এবং ট্রাস্টের উপদেষ্টা মো. আব্দুস সাত্তার । অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. নজরুল ইসলাম খান, সাধারণ স¤পাদক দানা এহতেশাম, শিক্ষক আসাব উদ্দিন খান প্রমুখ। অনুষ্ঠানে ১০ জন শিক্ষার্থীর হাতে এককালীন শিক্ষা বৃত্তি ও প্রশংসা পত্র তোলে দেন অতিথিবৃন্দ।
শিক্ষক হিসেবে সফলতার সাক্ষর রাখায় অবসরপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মোমেন কে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক সম্মাননা পদক প্রদান করা হয়। তিনি জেলা ও জাতীয় পর্যায়ে শ্রেষ্ঠ শিক্ষক হিসেবেও স্বীকৃত ও পুরস্কৃত।
এছাড়াও উপজেলা পর্যায়ের শ্রেষ্ঠ প্রাথমিক শিক্ষক-২০১৮ এর সেরা নির্বাচিত মো. আরিফুল হক লিটন ও নাজমুন নাহার কে ট্রাস্ট কর্তৃক অভিনন্দন স্মারক প্রদান করা হয়।
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পঞ্চম শ্রেণির শিক্ষার্থীর অংশগ্রহণে প্রথমবারের মত অনুষ্ঠিত হয়েছে জামেদা বেগম স্মৃতি বৃত্তি পরীক্ষা-২০১৮। ‘জ্ঞান ভিত্তক সমাজ বিনির্মাণে সুশিক্ষার বিকল্প নেই’ সেøাগানকে সামনে রেখে শিক্ষা বৃত্তির আয়োজন করেছে জামেদা বেগম মেমোরিয়াল ট্রাস্ট । শিক্ষা-স্বাস্থ্য-সেবা ও সৃজনশীল কার্যক্রম পরিচালনার মহান ব্রত নিয়ে চলতি বছরে জামেদা বেগম মেমোরিয়াল ট্রাস্ট প্রতিষ্ঠার পর পরই বৃত্তি পরীক্ষার আয়োজন করেছে। ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান বাংলাদেশ টেলিভিশনের সাবেক বিতার্কিক মো. আবুল কালাম আজাদ বলেন, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে আলোর পথ দেখানো, মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্য সচেতনতা বৃদ্ধি ও সেবার মহান ব্রত নিয়ে আমি আমার মায়ের নামে এই প্রতিষ্ঠান দাঁড় করেছি। তিনি আরও বলেন, শিক্ষার্থীদের নিয়ে বিভিন্ন সৃজনশীল কর্মকান্ড যেমন বিতর্ক, উপস্থিত বক্তৃতা, রচনা প্রতিযোগিতা, বই পড়া কর্মসূচী, মুক্তিযুদ্ধের উপর পড়াশুনা ও মুক্তিযুদ্ধ ভিত্তিক সাধারণ প্রতিযোগিতা এবং বিষয় ভিত্তিক কর্মশালার আয়োজন করা এই ট্রাস্টের মূল লক্ষ্য। অতিথিবৃন্দ বলেন, বেসরকারি পর্যায়ে প্রত্যন্ত পল্লীর শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে জামেদা বেগম মেমোরিয়াল ট্রাস্টের এই আয়োজনকে আমরা অভিনন্দন জানাই। তাঁরা পরীক্ষার ব্যবস্থাপনায় সন্তোষ প্রকাশ করেন। ট্রাস্টের কার্যক্রমে যেকোনো সহযোগিতা প্রদানের আশ্বাস প্রদান করে বলেন, মেধা যাচাইয়ের মাধ্যমে বৃত্তি প্রদানের লক্ষ্যে শিক্ষার্থীদের উৎসাহ প্রদান একইসাথে সবাইকে জাগিয়ে তোলবার এই প্রয়াসকে তাঁরা সাধুবাদ জানান। তাঁরা ট্রাস্টের কাজে সার্বিক সহযোগিতা প্রদানের দৃঢ় প্রত্যয় ব্যক্ত করে বলেন, পিছিয়ে পড়া জনগোষ্ঠীকে আলোর পথে এগিয়ে নিতে এই কার্যক্রম সহায়ক হবে বলে আমার দৃঢ় বিশ্বাস।
অনুষ্ঠানে প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সহকারি শিক্ষকবৃন্দ, অভিভাবক ছাড়াও স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ উপস্থিত ছিলেন।
ট্রাস্টের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ বৃত্তি কার্যক্রমে আর্থিক সহায়তা প্রদান করায় সমাজকর্মী ও ময়মনসিংহ কমার্স কলেজের অধ্যক্ষ লায়ন মো. এখলাস উদ্দিন খান কে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।
অনুষ্ঠানের সভাপতি জাতীয় পুরস্কার প্রাপ্ত সাবেক প্রাথমিক প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মোমেন আয়জনের সাথে সংশ্লিস্ট সবাইকে ধন্যবাদ অনুষ্ঠানের সমাপ্তি ঘোষণা করেন।