| |

যমুনার ভাঙনে হুমকির মুখে দেওয়ানগঞ্জ খোলাবাড়িরচর প্রাথমিক ও উচ্চ বিদ্যালয়॥শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের ভাঙন রোধের দাবী

এসএম হালিম দুলাল জামালপুর প্রতিনিধি॥জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জের চিকাজানী ইউনিয়নে যমুনা নদীর অব্যাহত ভাঙনে হুমকির মুখে রয়েছে খোলাবাড়ির চর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং উচ্চ বিদ্যালয়ের খেলার মাঠসহ একাধিক ভবন। তাই আতঙ্কে রয়েছে এলাকাবাসিসহ বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। বিগত দু’বছরে খোলাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের একতলা বিশিষ্ট ভবন,খোলাবাড়ির চর উচ্চ বিদ্যালয়ের আধা পাকা ভবনসহ বিদ্যালয়ের পাশে স্থাপিত একটি মসজিদ নদী গর্ভে বিলিন হয়েছে। গত বর্ষার মৌসুমে খোলাবাড়ি গ্রামের অন্তত শতাধিক বসতভিটা প্রায় দুই কিলোমিটার পাকা রাস্তা নদী গর্ভে বিলীন হয়েছে। নদী ভাঙন রোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে আগামী বর্ষার মৌসুমে বিদ্যালয় চত্ত্বরসহ খোলাবাড়িচর বাজারটি নদী গর্ভে বিলিনের আশংকায় এলাকাবাসীর মাঝে চরম হতাশা দেখা দিয়েছে। তাই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে ভাঙ্গন রোধের দাবি জানিয়েছেন বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্র্থীসহ এলাকাবাসী।
এ বিষয়ে গত ৭এপ্রিল শনিবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল এমপি তিনি খোলাবাড়িরচর এলাকায় বাহাদুরাবাদ নৌ থানার নবনির্মিত ভবন উদ্বোধন করতে এলে খোলাবাড়ির চর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ও উচ্চ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষক-শিক্ষার্র্থীরা রাস্তার দু’পাশে দাঁড়িয়ে ‘শিক্ষা নিয়ে গড়ব দেশ- শেখ হাসিনার বাংলাদেশ। “দাবি মোদের একটাই নদী ভাঙন রোধ চাই” ‘স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীর আগমন শুভেচ্ছা স্বাগতম’ এ ধরনের বিভিন্ন স্লোগান সম্বলিত প্লেকার্ড হাতে নিয়ে উচ্চস্বরে স্লোগান দিতে দেখা গেছে।
খোলাবাড়ির চর উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক খোরশেদ আলম বলেন, বর্তমানে বিদ্যালয়ের ক্লাস রুম রয়েছে মাত্র পাঁচটি। গত বন্যায় যমুনা নদী গর্ভে একটি ভবন বিলীন হয়ে গেছে। তাই ক্লাস রুম সংকটের কারণে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যাহত হচ্ছে। তাই আমরা নদী ভাঙন রোধে মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে দাবি জানিয়েছি।
খোলাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক মরিয়ম কাউসার বলেন, ২০০৬-০৭ শিক্ষাবর্ষে এ বিদ্যালয়ের একটি পাকা ভবন নির্মিত হয়েছিল। বিগত দিনে যমুনা নদীর ভাঙনে ভবনটি নদী গর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। বর্তমানে মাত্র দুইটি ক্লাস রুম রয়েছে। তাই খোলাবাড়ির চর উচ্চ বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষে সহযোগিতায় একটি রুমে চতুর্থ শ্রেণীর শিক্ষার্খীদের শিক্ষাদানে ক্লাস নেয়া হচ্ছে।
বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী লায়লা বানু,আল মামুন এবং নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী আমিনা ও আব্দুল্লাহ জানায়, বিদ্যালয়ের ভবন নদী গর্ভে বিলীন হলে তারা কোথায় গিয়ে পড়ালেখা করবে তা’ তারা জানে না। আরো উল্লেখ করে তাদের কমপক্ষে ৩ কিলোর মধ্যে কোন উচ্চ বিদ্যালয় নেই।
খোলাবাড়ির চর বাজারের ব্যবসায়ী জোবায়ের সরকার বলেন এখন যমুনার পানি কমে গেছে তাই ভাঙন দেখা যাচ্ছে না। আগামী বর্ষায় পানি বৃদ্ধির সাথে ভয়াবহ ভাঙন শুরু হবে। যদি নদী ভাঙন রোধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হয় তবে খোলাবাড়ীর চর উচ্চ বিদ্যালয়,সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবন, খেলার মাঠ, খোলাবাড়ীরচর বাজার, আশপাশের শতাধিক বসত ভিটাসহ নদী গর্ভে বিলীন হবে,হুমকির মুখে পড়বে নৌ থানার নবনির্মিত ভবন।
এ বিষয়ে উপজেলার চিকাজানী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মমতাজ উদ্দিন বলেন, এভাবে নদী ভাঙন অব্যাহত থাকলে পাকা রাস্তা ভেঙে গেলে এ ইউনিয়নটি বিচ্ছিন্ন হয়ে যাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে হাজারও মানুষ।
এ ব্যাপারে দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ গোলাম মোস্তফা জানান, নদী ভাঙন রোধে পানি উন্নয়ন বোর্ড একটি প্রকল্প গ্রহনের কথা শুনেছি। কিন্তু এ সম্পর্কে সর্বশেষ তথ্য কি’ তা’জানিনা।
জামালপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী নব কুমার চৌধুরীর কাছে এ বিষয়ে জানাতে চাইলে তিনি জানান,দেওয়ানগঞ্জের ফুটানী বাজার পর্যন্ত প্রকল্প রয়েছে কিন্তু খোলাবাড়ীর চর পর্যন্ত নেই বলে জানান।