| |

ভালুকায় দখল -দূষণে খিরু’র কান্না

নিজস্ব সংবাদদাতা ভালুকা ময়মনসিংহ ১৫ মে
এক সময় খরস্্েরাতা খিরু নদী ছিলো ভালুকার আশীর্বাদ। নদীটিতে মিলতো বিভিন্ন প্রজাতির মাছ । বুক চিরে চলাচল করতো লঞ্চ ও পালতুলা হরেকরকম নৌকা। খিরু‘র পানি ছিলো স্বচ্ছ টলমলে। এলাকার কৃষি কাজে ব্যাবহৃত হতো নদীর পানি। নদীর দু পাশের মানুষ গোসল করতো খিরুতে। সেই খীরু’র বুক জুড়ে এখন শুধুই হাহাকার। খীরু’র পানির দিকে তাঁকানোর জো নেই। খিরু‘র পানি এখন প্রচন্ড দূর্গন্ধযুক্ত, ধারন কালছে কালচে বিবর্ণ রঙ। খিরু এখন হয়ে উঠেছে ভয়াবহ বিষাক্ত। খিরু’র বুক জুড়ে এখন শুধুই কান্না। দূষণে-দখলে-বর্জ্যে হয়ে উঠেছে বিষাক্ত। খিরু‘র শাখা প্রশাখার জায়গা সংকুচিত হয়ে গেছে। অবৈধ দখল ও শিল্প কারখানার বর্জ্য ফেলার কারনে তৈরী হয়েছে এ অবস্থা। এলাকার কৃষক নিরুপায় হয়ে এ বিষাক্ত পানি দিয়েই চালাচ্ছে চাষাবাদ। ফলে শুষ্ক মৌসুমে ফসল উৎপাদন কম হচ্ছে। শিল্প-কারখানার বিষাক্ত বর্জ্যরে কারণে নদীতে মাছের দেখা মিলা দুষ্কর। সরজমিনে ঘুরে দেখা যায়, দখলবাজী পরিমাণটাও স্পষ্ট । জবরদখল প্রক্রিয়া থামাতে মাঝেমধ্যে সরকারি পদক্ষেপ নেওয়া হলেও নানা সীমাবদ্ধতায় থমকে দাঁড়ায়। প্রভাবশালী দখলবাজরা থাকে অপ্রতিরোধ্য।
নদীর পাশ দিয়ে গেলে রাসায়নিক পদার্থের তীব্র কটু গন্ধ লাগবে নাকে। শিল্প-কারখানার বর্জ্য পড়তে পড়তে নদীর পানি একদম পচে রঙিন হয়ে গেছে। বহুদূর পর্যন্ত পানির এ দুর্গন্ধ গিয়ে নাকে লাগে।
জানাযায়, প্রায় দেড় যুগ ধরে তৈরি হয়েছে এ অবস্থা। দিন দিন অবস্থা আরও খারাপ হচ্ছে। আগে সব কাজে মানুষ নদীর পানি ব্যবহার করত। গোসল করতো। এখন গোসল তো দূরের কথা, এ পানিতে হাত লাগলেই তীব্র চুলকানি হয়। নদীর পানি দূষিত হয়ে যাওয়ায় নদীর পাশের গ্রামে টিউবঅয়েল দিয়ে তোলা পানিতেও কটু গন্ধ থাকে। টিউবঅয়েল বেশি গভীর করে না বসালে পানি খাওয়া যাচ্ছে না। বয়ডা গ্রামের বেশ কয়েকজন কৃষকের সাথে কথা হলে তারা জানান, পানি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় নদীপাড়ের বিশাল এলাকার দু-তিন ফসলি জমি এক ফসলি হয়ে গেছে। শুধু বোরো ধান ছাড়া এখানে অন্য কিছু হয় না। কারণ অন্য সময়ের ফসল এ পচা পানি সহ্য করতে পারে না। এ কারণে খিরু নদীর দুই তীরের মানুষের আয় কমে গেছে। তারা আরও জানান, জমিতে বাধ্য হয়েই নদীর পানি ব্যবহার করতে হয়। তারা এখন জমিতে চাষ করে যে পরিমান ফসল পান, কিন্তু যদি পানি ভালো থাকত, তাহলে এখানে দুই গুণ বেশি ফসল পেতেন। পচা পানির কারণে ফসলের উৎপাদন কমে গেছে। এ পানি জমিতে বেশি পড়লে চারা গাছ পচে যায়। আর পচা পানিতে জমিতে কাজ করলে হাত-পা চুলকায়।
ভালুকা উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা জেসমিন নাহার বলেন, ‘পচা পানির কারণে শুষ্ক মৌসুমে খিরু নদীর দু’তীরের ফসল উৎপাদন কম হয়। পানি ভালো থাকলে উৎপাদন ও ফসলের গুণগত মান আরও বাড়ত।
উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) রোমেন শর্মা জানান, অবৈধ ভাবে নদীর দু‘পাশের জমি দখলদার উচ্ছেদের নির্দেশনা পেয়েছি। অচিরেই নদীর সীমানা ডিমাগ্রেশণ নির্ধারণ করে আমরা অভিযানে মানবো’।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার মাসুদ কামাল জানান, ‘নদির সিমানা চিহ্নিতের কাজ চলছে, যে কোন সময় আমরা অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করবো। আর যে সকল শিল্প কারখানা নদীতে বর্জ্যে ফেলে পরিবেশ নষ্ট করছে তাদের বিরোদ্ধে আইনআনুগ ব্যাবস্থা গ্রহণের উদ্যোগ গ্রহণ করা হচ্ছে’।