| |

পিবিআই জামালপুর কর্তৃকঅপহরণের ৩ মাস পর স্কুলছাত্রী মেঘনা আক্তারকে উদ্ধার

জেলা প্রতিনিধি ঃ অপহরণের ৩ মাস পর গত (২১ মে) মঙ্গলবার রাতে ইসলামপুরের স্কুল ছাত্রী মেঘনা আক্তারকে উদ্ধার করে জামালপুরের পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেষ্টিকেশন (পিবিআই)। গত বুধবার (২২ মে) আদালতের নির্দেশে মা রোজিনা বেগমের হাতে তুলে দেওয়া হয় মেঘনা আক্তারকে। জামালপুর পিবিআই সূত্রে জানা গেছে, ইসলামপুর উপজেলার তেঘুরিয়া গ্রামের মনোয়ার হোসেনের মেয়ে মেঘনা আক্তার নানা বাড়ি মেলান্দহ উপজেলার কলাবাঁধা গ্রামে বসবাস করতো। সে স্থানীয় কলাবাঁধা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৭ম শ্রেণীতে লেখাপড়া করতো। গত ২৭ ফেব্রুয়ারি-২০১৯ স্কুল থেকে বাড়ি ফেরার সময় একই এলাকার বখাটে জাহিদুল ইসলাম পিয়ান ও তার সাঙ্গপাঙ্গরা মেঘনাকে রাস্তা থেকে জোর পূর্বক অপহরণ করে সিএনজি যোগে নিয়ে উধাও হয়। এ ব্যাপারে অপহৃতার মা রোজিনা আক্তার বাদী হয়ে জাহিদুল ইসলাম পিয়ানসহ ৪/৫ জনের বিরুদ্ধে জামালপুর আদালতে মামলা দায়ের করেন। আদালত মামলাটি তদন্ত ও অপহৃত স্কুলছাত্রীকে উদ্ধারের জন্য জামালপুরের পিবিআইকে দায়িত্ব দেয়। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পিবিআইয়ের অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার ও মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ফারুক হোসেন বুধবার সকালে মেলান্দহ উপজেলার দুরমুট এলাকার একটি বাড়ির কক্ষ থেকে অপহৃত স্কুলছাত্রী মেঘনা আক্তারকে উদ্ধার করেন। ওইদিনই তাকে জামালপুর আদালতে হাজির করা হলে আদালত স্কুলছাত্রীকে তার অভিভাবকের হাতে বুঝিয়ে দিতে পিবিআইকে নির্দেশ দেন। আদালতের নির্দেশে গত বুধবার পিবিআইয়ের অতিরিক্ত বিশেষ পুলিশ সুপার সীমা রানী সরকার উদ্ধারকৃত স্কুলছাত্রীকে তার মা রোজিনা আক্তারের হাতে তুলে দেন। ৩ মাস পর একমাত্র মেয়ে মেঘনা আক্তারকে ফিরে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে পড়েন রোজিনা আক্তার।