| |

আজ গৌরীপুর সরকারি কলেজের ৫৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী ॥ প্রাচীন এ বিদ্যাপীঠটি নানা সমস্যায় জর্জরিত

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা ॥
আজ ১লা আগষ্ট ময়মনসিংহের গৌরীপুর সরকারি কলেজের ৫৫তম প্রতিষ্ঠিাবার্ষিকী। কলেজটি দীর্ঘ পথ পরিক্রমায় ৫৫বছর শিক্ষার আলো ছড়িয়ে আজ ৫৬ বছরে পা রাখলো। কলেজটির ৫৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে কলেজের বর্তমান ও প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং শিক্ষক-সুধিজনদের নিয়ে বুধবার (৩১জুলাই) বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা, কেক কাটা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও আড্ডার আয়োজন করা হয়। তবে প্রাচীন এ বিদ্যাপীঠটি নানা সমস্যায় জর্জরিত।
ময়মনসিংহের উত্তর জনপদের পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীকে উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করতে ১৯৬৪ সালের ১লা আগষ্ট সাবেক অধ্যক্ষ মিছবা উদ্দিনের নেতৃত্বে তৎকালীন বিদ্যুৎসাহী ব্যক্তিবর্গ গৌরীপুর পৌর শহরের কৃষ্ণপুর এলাকায় জমিদার সুরেন্দ্র প্রসাদ লাহিড়ীর বাড়িতে শুরু করেন ঐতিহ্যবাহি এই বিদ্যাপীঠের যাত্রা। জমিদারের দৃষ্টিনন্দন বাড়িসহ ২২ একর জমির উপর গড়ে উঠে কলেজ ক্যাম্পাস। কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন অধ্যক্ষ ছিলেন মরহুম মেজবাহ উদ্দিন আহমেদ। প্রতিষ্ঠার পর থেকে দীর্ঘ ৫৫ বছর অতিক্রান্ত করে কলেজটি আজ একটি বৃহৎ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পরিণত হয়েছে। এবং ময়মনসিংহ উত্তর জনপদ ও আশেপাশের অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার প্রসারের ক্ষেত্রে এই কলেজ অগ্রনী ভূমিকা পালন করছে।
কলেজটিতে এইচ.এস.সি ও ডিগ্রী পাস কোর্সের পাশাপাশি ২০১১-১২ শিক্ষাবর্ষ থেকে অনার্স কোর্সের প্রবর্তন করা হয়। বর্তমানে কলেজে বাংলা, সমাজকর্ম, মনোবিজ্ঞান, হিসাব বিজ্ঞান, ব্যবস্থাপনা ও রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিষয়ের অনার্স কোর্স চালূু আছে। কলেজ প্রায় ৫০০০ শিক্ষার্থী অধ্যয়নরত। কলেজর ৪৭জন শিক্ষকের মাঝে অধ্যাপক, সহোযোগী অধ্যাপক ও প্রভাষক সহ জনের ৪৫ জন কর্মরত আছেন। ইংরেজী ও রাষ্ট্র বিজ্ঞান বিষয়ের দুটি সহযোগী অধ্যাপক এবং লাইব্রেরীয়ানের পদ শূণ্য রয়েছে। রয়েছে শ্রেণীকক্ষের সংকট। কলেজে দূরবর্তী ছাত্রদের থাকার জন্য ২টি জরাজীর্ণ ছাত্রাবাস আছে। যা শিক্ষার্থীদের তুলনায় অতি নগন্য ও বসবাসের অনুপোযোগী। নেই শিক্ষকদের কোন আবাসন ব্যবস্থা। কলেজের শিক্ষার্থীদের সামরিক প্রশিক্ষনের জন্য রয়েছে বাংলাদেশ ন্যাশনাল ক্যাডেট কোর (বিএনসিসি) ও সমাজ সেবামূলক কাজের অনুপ্রেরণার জন্য রয়েছে রোভার স্কাউট ইউনিট। শিক্ষার্থীদের খেলা-ধূলার জন্য রয়েছে বিশাল একটি খেলার মাঠ।