| |

নান্দাইলে খুনের ঘটনায় নিরাপত্তা জোরদার পুলিশের উপর হামলা ॥ ২ শতাধিক ব্যাক্তির নামে মামলা আটক -৯

নান্দাইল (ময়মনসিংহ) প্রতিনিধি: ময়মনসিংহের নান্দাইল উপজেলার দেওয়ানগঞ্জ বাজারের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে রোববার ঘটে যাওয়া প্রকাশ্য দিবালোকে খুনের ঘটনায় এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। সরজমিন দেখা যায়, সোমবার নান্দাইল মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মনসুর আহম্মেদের নেতৃত্বে ৩০/৩৫ জনের একটি পুলিশ টিম দেওয়ানগঞ্জ বাজারে কড়া পাহাড়ায় পুলিশি তৎপরতা রয়েছে। অত্র এলাকায় এক পক্ষের আক্রমণে সাইদুল ইসলাম (৩৫) খুন হওয়ায় দেওয়ানগঞ্জ বাজার সহ এলাকায় থম থমে ও জনগণের মাঝে আতংক বিরাজ করছে। রোববার নান্দাইল থানা পুলিশ উক্ত ঘটনায় বাজারে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে গেলে পুলিশের উপর হামলা হয়। পুলিশ দুই রাউন্ড গুলিও বর্ষন করে বলে অফিসার ইনচার্জ মনসুর আহম্মদ জানান। এতে করে ৩জন পুলিশ সদস্য আহত হয়। নান্দাইল মডেল থানার উপ-পরিদর্শক মোহাম্মদ লিটন বাদী হয়ে রোববার রাতে অত্র এলাকার ৫৫ জনের নাম উল্লেখ সহ অজ্ঞাত দেড় শতাধিক ব্যাক্তির বিরুদ্ধে পুলিশের কর্তব্য কাজে বাধা প্রদানের অভিযোগে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে। উক্ত মামলায় সোমবার (২৬ আগস্ট) ৯জনকে গ্রেফতার করে জেলা ময়মনসিংহের বিজ্ঞ ম্যাজিস্ট্রেট কোর্টে প্রেরন করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃতরা হচ্ছে, পারভেজ মোশারফ (১৯), জুবায়ের রাকিব (২০), রাসেল (১৯), মেহেদী হাসান তৌসিদ (২০), বুলবুল ইসলাম (৩০), সুমন মিয়া (২১), হৃদয় মিয়া (১৯), আনোয়ার হোসেন (৩৮) ও তাহের উদ্দিন (৫৫)। উল্লেখ্য, উপজেলার খারুয়া ইউনিয়নের বিরাশি গ্রামের মুক্তুল মল্লিক এবং মহেষকুড়া গ্রামের মৃত ইয়াজদর সরকার বাড়ির সাথে দেওয়ানগঞ্জ বাজারের আধিপত্য বিস্তার নিয়ে সৃষ্ট গোলযোগে এই খুনাখুনির ঘটনা ঘটে। এতে করে হামলায় মহেষকুড়া গ্রামের এজাহার মিয়ার পুত্র সাইদুল (৩৫) প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে নিহত হয় এবং পাভেল (৩০) এর একটি হাত কেটে ফেলেছে প্রতিপক্ষরা। তার অবস্থা গুরুতর হওয়ায় ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল থেকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করা হয়েছে। রিপোর্ট পাঠানো পর্যন্ত খুনের ঘটনায় এখনও থানায় কোন এজাহার দায়ের করা হয়নি।