| |

ঝিনাইগাতীতে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকান্ড বিপাকে গ্রাহকরা

ঝিনাইগাতী প্রতিনিধি : শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে লোকবলের অভাবে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকান্ড। ফলে এ উপজেলার বিদ্যুৎ গ্রাহকরা রয়েছে মহা বিপাকে। শতশত গ্রাহককে বইতে হচ্ছে ভৌতিক বিলের বোঝা। জানা যায়, ঝিনাইগাতী উপজেলায় পিডিবি প্রায় ৮ হাজার গ্রাহক রয়েছে। কিন্তু বিদ্যুৎ গ্রাহকদের সেবা দেওয়ার জন্য নেই পর্যাপ্ত লোকবল। উপজেলা আবাসিক প্রকৌশলী অফিসে ১ জন কর্মকর্তা ২ জন অফিস সহকারী, ২ জন লাইনম্যান, ৪ জন হেলপার, ১ জন নিরাপত্তা প্রহরী ও ১ জন এমএলএসএস রয়েছে। যা প্রয়োজের তুলনায় অপ্রতুল। এ অফিসে নেই কোন মিটার রিডার। লাইনম্যানদের দিয়ে করানো হচ্ছে মিটার রিডারের কাজ। তারা মিটার চেক না করেই অফিসে বসেই অতিরিক্ত হারে বিল করছেন। বিদ্যুৎ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, শুধু ঝিনাইগাতীতে নয়, পুরো শেরপুর জেলাতেই কোন মিটার রিডার নেই। গত ২ যুগেও কোন মিটার রিডার নিয়োগ দেয়া হয়নি। মিটার রিডার না থাকায় নানা বিড়ম্বনার শিকার হতে হচ্ছে বিদ্যুৎ বিভাগকে। গ্রাহকদের অভিযোগ, ২টি বাল্ব জালানোর পর মাস শেষে লাইনম্যানরা অনেক গ্রাহকের বিল করা হচ্ছে ৫ হাজার থেকে ৭ হাজার টাকা পর্যন্ত। এ ধরনের অভিযোগ প্রতিনিয়তই শোনা যাচ্ছে। মাঝেমধ্যেই অতিরিক্ত বিলের টাকা নিয়ে বিদ্যুৎ কর্মচারীদের সাথে গ্রাহকদের হাতাহাতি ঘটনাও ঘটছে। এছাড়া দুর্বল ব্যবস্থাপনার মধ্য দিয়ে চালানো হচ্ছে বিদ্যুৎ সংযোগ। ফলে মাঝেমধেই নানা সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। লোকবলের অভাবে সমস্যাগুলো তড়িৎ সমাধা করাও সম্ভব হচ্ছে না। এতে ভোগান্তি বাড়ছে গ্রাহকদের। সবকিছু মিলে এ উপজেলায় খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলছে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মকান্ড। অভিজ্ঞ মহলের মতে গ্রাহকদের ভোগান্তি লাঘবে বিদ্যুৎ বিভাগের সমস্যা গুলোর দ্রুত সমাধান প্রয়োজন।