| |

গণতন্ত্র বিজয় দিবসে জেলা আ’লীগের আনন্দ শোভাযাত্রা মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের সকলকে ঐক্যবদ্ধ হতে হবে-এড. জহিরুল হক

স্টাফ রিপোর্টার ॥ গণতন্ত্র বিজয় দিবস পালন উপলক্ষে ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের উদ্যোগে গতকাল ৫ জানুয়ারী (মঙ্গলবার) বিজয় শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। বিকাল ৪টায় ময়মনসিংহ সার্কিট হাউজ থেকে সহস্ত্রাধিক মোটর সাইকেল শোভাযাত্রা বের হয়ে টাউনহল মোড় হয়ে কাচারী রোড হয়ে জুবিলীঘাট ঘাট রোড হয়ে পাটগুদাম ব্রীজ মোড় হয়ে চরপাড়া মোড় হয়ে ত্রিশাল বাসস্ট্যান্ড মোড় হয়ে বাউন্ডারী রোড হয়ে ফুলবাড়ীয়া পুরাতন বাসস্ট্যান্ড ঘুরে সানকি পাড়া শেষ মোড় জামতলা কাশর হয়ে পুলিশ লাইন মোড় ঘুরে কাচিঝুলি মোড় হয়ে পার্ক ঘুওে আবারো সার্কিট হাউজে শেষ হয়। মোটর সাইকেল শোভাযাত্রায় ভ্যানপার্টি ও মাইকিংযোগে আওয়ামীলীগ সরকার প্রধান জনেেনত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন সম্পর্কে বক্তব্য প্রচার করা হয়। শোবাযাত্রার অগ্রভাগে জেলা আওয়ামীলীগের নেতৃবৃন্দ খোলা ট্রাকে চড়ে পালাক্রমে বক্তব্য দেন। বিশাল শোভাযাত্রা চলতে দেখে শহরের প্রতিটি রোডে হাজার হাজার শহরবাসী পথচারী করতালীর মাধ্যমে শোভাযাত্রাকে অভিনন্দন জানান। এ সময় মোটর সাইকেল শোভাযাত্রার বহর থেকে প্রচারপত্র বিলি করা হয়। এর আগে শোভাযাত্রা উদ্বোধন করেন জেলা আওয়ামীলীগের সিনিয়র সভাপতি ও জেলা পরিষদের প্রশাসক এডভোকেট মোঃ জহিরুল হক। এ সময় তিনি বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার দেশের উন্নয়নে কাজ করে আসছে। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা দেশ পরিচালনা করে দেশে বিদেশে বাংলাদেশের ভাবমুর্তি উজ্জল করেছে। ঠিক এই মুহুর্তে ১৯৭১ সালের মুক্তিযুদ্ধের বিরোধী ও সাবাধীনতা বিরোধীচক্রের সহায়তায় জামাত বিএনপি দেশে অসহনীয় পরিবেশ গড়ে তোলার চেষ্ঠা করে। তিনি আরো বলেন, এ অবস্থায় গণতন্ত্র রক্ষা করতে ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচনের মাধ্যমে বর্তমান সরকার গঠিত হয়। এ নির্বাচনকে বানচাল করতে বিএনপি জামাত দেশে পুড়িয়ে ও কুপিয়ে মানুষ হত্যা, আগুন দিয়ে গাড়ী পোড়ানো, ভোট কেন্দ্র পোড়ানো, পোলিং অফিসারকে মারধরসহ দেশকে অস্থিতিশীল করে তোলার চেষ্ঠা করে। জননেত্রী শেখ হাসিনা শক্ত হাতে তা প্রতিহত করেছেন। বর্তমান সরকারের দুই বছর পুর্তি উপলক্ষে চক্রটি আবারো দেশকে অশান্ত করে তোলার ষড়যন্ত্র করছে। তিনি এ সকল ষড়যন্ত্র প্রতিহত করতে সকলকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে কাজ করার আহবান জানান। সভায় জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক এমপি আব্দুল মতিন সরকার বলেন, বিএনপি জামাত দেশে গণতন্ত্রেও ধারাবাহিকতা নশ্যাত করার চেষ্ঠা করেছিল। মুক্তিযুদ্ধের শক্তি সংগঠিত থাকার কারণে চক্রটি ব্যর্থ হয়েছে। সভায় ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ ইকরামূল হক টিটু বলেন, মুক্তিযুদ্ধ ও ১৯৭১ সালের বিরোধীচক্র ফায়দা লুটতে বার বার নানা ষড়যন্ত্র করে আসছিল। ৫ জানুয়ারীর নির্বাচন ছিল গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার নির্বাচন। এ নির্বাচনকে বানচাল করতে বিএনপি জামাত ডাক দিয়ে প্রতিবন্ধকতা করেছিল। এ সময় চক্রটি ব্যাপক নাশকতা করেছে। এর পরও আওয়ামীলীগের সভানেত্রী শেখ হাসিনা ১৯৭১ সালের ন্যায় মুজিব সেনার মত শক্তহাতে তা প্রতিহত করেছেন। মেয়র টিটু আওয়ামীলীগের প্রতিটি নেতাকর্মীকে জননেত্রীর সৈনিক হিসাবে বাংলাদেশকে সোনার বাংলা গড়তে ঐক্যবদ্ধ হয়ে সব সময় মাঠে থাকার আহবান জানান। এ সময় জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক এহতেশামুল আলম, কোষাধ্যক্ষ ফারুক হোসেন, অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, এড ফরিদ আহমেদ, জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক এম এ কুদ্দুস, যুবলীগ নেতা শওকত জাহান মুকুল, শাহ শওকত উসমান লিটন, আখেরুল ইমাম সোহাগ, আব্দুল আউয়াল মিন্টু, হুমায়ুন কবির হিমেলসহ বিভিন্ন পর্যায়ের আওয়ামীলীগ,যুবলীগ,ছাত্রলীগ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। পরে শোভাযাত্রাটি আবারো সার্কিট হাউজ মাঠে এলে সমাপনী বক্তব্য দেন মেয়র ইকরামুল হক টিটু।