| |

পূর্বধলায় উপ-সহকারী মেডিকেল অফিসারের ভূল চিকিৎসায় শিশুর মৃত্যুর অভিযোগ

তিলক রায় টুলু পূর্বধলা থেকেঃ

পূর্বধলায় একজন উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসারের ভূল চিকিৎসায় জোনাকী নামের ১০ মাসের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।
মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) বিকালে উপজেলা সদরের হাসপাতাল গেইট সংলগ্ন মা ডায়গনোস্টিক সেন্টারে এ দূর্ঘটনাটি ঘটে।
নিহত জোনাকী সদর ইউনিয়নের ভিতরগাঁও গ্রামের জাহাঙ্গীরের মেয়ে।
এ ঘটনায় উত্তেজিত জনতা মা ডায়নোস্টিক সেন্টার ও হাসপাতাল ঘেরার করে। খবর পেয়ে পূর্বধলা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।
পুলিশ পূর্বধলা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে কর্মরত উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার অভিযুক্ত গোলাম মোস্তফাকে তাদের হেফাজতে নেয় এবং শিশুর লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।
নিহত শিশু জোনাকীর বাবা জাহাঙ্গীর বলেন গত পাঁচ মাস আগে তার শিশুর মাথায় একটি টিউমার আকৃতির মতো দেখা দিলে মঙ্গলবারদিন বিকালে পূর্বধলা হাসপাতাল সংলগ্ন মা ডায়গনোস্টিক সেন্টারে ডা. গোলাম মোস্তফার চেম্বারে নিয়ে আসি। সেখানে টিউমার অপারেশনের জন্য ডাক্তারের সাথে ১ হাজার ৫ শত টাকা চুক্তি হয়। এরপর ডা. একটি ইনজেকশন দিতেই তার মেয়ের খিচুনি শুরু হয় ও এর কিছু সময় পড়েই শিশুটি মৃত্যুও কোলে ঢলে পড়ে।
পূর্বধলা হাসপাতালের কর্তব্যরত ডা. ওয়াহীদুর রহমান মামুন জানান মিশুটিকে এনেসথেশিয়া দেওয়ার পর তার খচুনি শুরু হলে উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গোলাম মোস্তফা শিশুটিকে হাসপাতালের দোতালায় নার্স রুমে নিয়ে অক্সিজেন দেয়। তাৎক্ষনিক আমি জরুরী বিভাগ থেকে হাসপাতালের দোতলায় গিয়ে শিশুটি মৃত দেখতে পাই।
পূর্বধলা হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আরএমও মোঃ আজহারুল ইসলাম জানান উপ-সহকারী কমিউনিটি মেডিকেল অফিসার গোলাম মোস্তফা যেহেতু সে বিশেষজ্ঞ কোন ডাক্তার, সার্জন বা নিউরো সার্জন নন সেহেতু তার ভ’ল চিকিৎসার কারনে এ দূয়র্ঘটনা ঘটতে পারে।
পূর্বধলা থানার ওসি তাওহদিুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন ইতি মধ্যে অভিযোক্ত ডা. গোলাম মোস্তফাকে পুলিশ হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষে অভিযোগ করা হলে তদন্ত সাপেক্ষে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।
এদিকে অভিযুক্ত গোলাম মোস্তফা সাংবাদিকদের জানান শিশুটির মাথায় টিউমার ছিলনা। এটি সামান্য একটি ফোঁড়া ছিল। আমি এই ফোঁড়াটিতে লোকাল ইনজেকশন দেওয়ার পর এ দূর্ঘটনাটি ঘটে।