| |

দুর্গাপুর পৌরসভার সড়কগুলো এখন মরনফাঁদ কর্তৃপক্ষকে দায়ী করলেন পৌরবাসী

মোঃ মোহন মিয়া : নেত্রকোনার খানাখন্দে ভরপুর একটি পৌরসভা নাম তার দুর্গাপুর । পৌরশহরের সড়কগুলো চলাচলের এখন মরনফাঁদ। দৈনিক হাজার হাজার ভিজাবালুবাহী ট্রাক ,লরি, ও ড্রাম ট্রাক পৌরশহরের ভিতর দিয়ে চলাচল করায় বহু খানাখন্দ সৃষ্টি হয়ে পথচারীদের চলাচলে মারাত্মক হুমকী হয়ে পড়েছে । দুর্গাপুর প্রেসক্লাব সম্মুখ হতে এম.কে সি এম পাইলট সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় মোড় পর্যন্ত, দুর্গাপুর নাজিরপুর মোড় হতে এমপির মোড় পর্যন্ত মহাসড়কের ভিজা কাদামাটিতে ভরপুর, দুর্গাপুর নজিরপুর মোড় হতে ব্যস্ততম উকিলপাড়া কালীবাড়ি মোড় পর্যন্ত,কালীবাড়ি হতে ব্যস্ততম ব্যবসা প্রতিষ্ঠান তেরীবাজার ফেরীঘাট পর্যন্ত , কালীবাড়ি মোড় হতে সুসং সরকারী মহাবিদ্যালয় হয়ে প্রশাসনিক ভবন পর্যন্ত সম্পূর্ন রাস্তা এখন মরনফাঁদ । চলাচলে জনদুর্ভোগ চরমে । এমপির মোড় হতে কাঁচাবাজার পর্যন্ত রাস্তাটি সর্বদা কাদা পানি হাঁটু পর্যন্ত জমে থাকে। এগুলো দেখার জন্য কেউ নেই । কর্তৃপক্ষকে দায়ী করলেন পৌরবাসী । অপরদিকে পৌরসভায় নেই কেনো ড্রেনেজ ব্যবস্থা ও নেই কেনো গনসোচাগার । পৌরসভায় কোনো ডাষ্টবিন না থাকায় পৌরবাসী বাধ্য হয়ে ময়লা আবর্জনা ফেলছেন রাস্তার উপরে । তাই রশীক জনেরা বলছেন কতৃপক্ষ নির্বিকার। দেখা হয়নাই চক্ষুমেলিয়া। ঘন কুয়াশা ও সামান্য বৃষ্টি হলে কাদা মাটি ও নোংরা পানিতে ভরপুর থাকে পৌর শহর । দুর্গাপুর বাজার সমিতির সাধারন সম্পাদক বাপ্পী সাহা বলেন, আমরা বহুবার পৌরসভাকে অবহিত করার পরও এর কোন অবসান দূর হচ্ছে না । বাহির থেকে ত্রেুতারা এসে চলাচল করতে পারছে না । এ ব্যাপারে পৌর মেয়র হাজ্বী আব্দুস সালাম এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সংবাদকে বলেন সমস্যাগলো বহুদিনের। পৌরশহরে প্রবেশ করার কোনো বাইপাস সড়ক না থাকায় শত শত ভারী ট্রাক,লরি ও ড্রাম ট্রাক প্রবেশ করায় রাস্তাগুলো রক্ষা করা যাচ্ছে না । সরকারী কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে রাস্তাগুলোর বারোটা বেজে গেছে । জেলা প্রশাসন ও উপজেলা প্রশাসনকে বহুবার অবহিত করা হয়েছে । এ ব্যাপারে দুর্গাপুর-কমলাকান্দার মাননীয় সংসদ সদস্য মানু মজুমদার এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি সংবাদকে জানান পৌরসভার সমস্যাটি বহুদিনের । পৌরশহরের ভিতর দিয়ে চলাচলের অবস্থা খুবই নাজুক ও দুঃখজনক । এ ব্যাপারে সোমেশ্বরী নদীর বাঁধ সংলগ্ন বিরিশিরি মহাসড়ক হতে আত্রাখালী ব্রিজ পর্যন্ত বাঁধ ঘেষে একটি বাইপাস রাস্তা নির্মানের প্রচেষ্টা চলছে ।