| |

গৌরীপুরে ট্রেনে ডাকাতি- ৬ যাত্রী আহত ॥ ২জন গ্রেফতার ॥ গৌরীপুরে ট্রেন আটকিয়ে যাত্রীদের বিক্ষোভ

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) সংবাদদাতা ॥ মোহনগঞ্জ থেকে রোববার (৯ জানুয়ারি) রাতে ছেড়ে আসা ২৬৩ আপ ট্রেনে ডাকাতির ঘটনায় গৌরীপুর রেলওয়ে জংশনে ট্রেন আটকিয়ে ক্ষতিগ্রস্থ যাত্রীরা বিক্ষোভ প্রদর্শন করে। যাত্রীদের অভিযোগ, ঘটনার সাথে রেলওয়ে কর্মকর্তা-পুলিশ জড়িত রয়েছে। গ্রামবাসী রাতভর ডাকাতদের তাড়া করে ২জনকে আটক করে সোমবার (১০ জানুয়ারি) সকালে পুলিশে সোপর্দ করেছে। ডাকাতদল অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে যাত্রীদের নিকট থেকে স্বর্ণালংকার, নগদ টাকা ও মোবাইল ফোনসহ প্রায় ২লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নিয়ে গেছে।
ক্ষতিগ্রস্থ ও প্রত্যক্ষদর্শী যাত্রীরা জানান, ট্রেনটি শ্যামগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে প্রায় ৩০মিনিট যাত্রা বিরতি করে। এ সময় কর্তব্যরত পুলিশ ময়মনসিংহগামী যাত্রীদের প্রথম বগিতে ও গৌরীপুরের যাত্রীদের দ্বিতীয় বগিতে উঠার নির্দেশ দিয়ে পুলিশ যাত্রীবিহীন তৃতীয় বগিতে উঠেন। ট্রেন ছাড়ার পরপরই লাইট বন্ধ করে দেয়া হয়। ১ম বগিতে যাত্রীবেশে উঠা ডাকাতদলের ৭জন যাত্রীদের অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে প্রায় ২লক্ষ টাকার মালামাল লুট করে নেয়। ডাকাতদের অস্ত্রাঘাতে এ সময় ৬জন যাত্রী আহত হয়। ট্রেনটি গৌরীপুর স্টেশনের আউটার সিগন্যালের সন্নিকটে ভালুকা এলাকায় এসে গতি ধীর হলে ডাকাতদলের সদস্যরা নেমে যায়।
গৌরীপুর স্টেশনে ট্রেনটি এলেই ক্ষতিগ্রস্থ যাত্রীরা ট্রেন অবরোধ করে কর্তব্যরত পুলিশকে ধাওয়া ও ট্রেনের কর্মকর্তারা জড়িত থাকার অভিযোগে এনে বিক্ষোভ করে। ডাকাতরা ভালুকা এলাকায় নেমে যাওয়ায় রাতভর গ্রামবাসী ওদের তাড়া করে পুকুরে কচুরিপনার নিচে লুকিয়ে থাকা তারাকান্দা থানার বিসকা উত্তরপাড়ার মৃত আঃ হেকিমের পুত্র আঃ সেলিম (৩০) ও গৌরীপুর উপজেলার পশ্চিম শালীহরের আব্দুল বারেকের পুত্র কাউসার (২৪) কে আটক করে রেলওয়ে ফাঁড়ি পুলিশের নিকট সোপর্দ করে। ঘটনায় জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে গ্রেফতারকৃত আঃ সেলিম জানান, তাদের দলে বিসকা গ্রামের আজিজুল হক, জুবায়েদ মিয়া, আয়নাল হক, শাহ আলম ও নুরু মিয়াও সঙ্গে ছিল। মোহনগঞ্জ ফাঁড়ির ইনচার্জ আক্কেল আলী জানান, কন্সটেবল মুমিনুল হক (কনং ৫৭৮) ডিউটিতে ছিল। যাত্রীদের বিক্ষোভ ও ডাকাতির ঘটনায় মামলা হয়েছে স্বীকার করে গৌরীপুর ফাঁড়ির ইনচার্জ নিরঞ্জন সরকার জানান, গ্রেফতারকৃত ২জনকে কোর্টে প্রেরণ করা হচ্ছে। আউটার সিগনালের সন্নিকটে ট্রেন থামার কোন কারণ নেই, স্টেশনে অন্যকোন ট্রেন ছিল না স্বীকার করে কেবিন মাস্টার আব্দুল কাদির জানান, ট্রেনটি রাত ১১টায় প্রবেশ করে ও ১১টা ৪২ মিনিটে ছেড়ে যায়।