| |

২ প্রতিবন্ধী ছেলে নিয়ে মোমেনা বেগমের মানবেতর জীবন-যাপন

ঝিনাইগাতী (শেরপুর) প্রতিনিধি : ২ প্রতিবন্ধী ছেলে নিয়ে মোমেনা বেগম মানবেতর জীবন-যাপন করে আসছে। মোমেনা বেগম (৪৫) শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার গোমড়া গ্রামের আবু সামা’র স্ত্রী। স্ত্রী, এক মেয়ে ও দুই প্রতিবন্ধী ছেলেকে রেখে আবু সামা দ্বিতীয় বিয়ে করে ঢাকায় পাড়ি জমায়। সহায়-সম্বলহীন মোমেনা বেগমের মাথা গুজার ঠাই হয়েছে গোমড়া গুচ্ছ গ্রামে। মেয়ে আছমা খাতুন (২২) এর বিয়ে হলেও স্বামী’র যৌতুকের দাবী মেটাতে না পাড়ায় এক সন্তানসহ স্বামী পরিত্যক্তা অবস্থায় মা মোমেনার মাথার বোঝা হয়ে দাড়ায়। ছেলে নুর ইসলাম (১৮) ও নুর হোসেন (১৫) প্রতিবন্ধী। মোমেনা বেগম পরিবারের সদস্যদের জীবিকা নির্বাহের তাগিদে বেছে নেয় শ্রম বিক্রি। প্রতিদিন অন্যের বাড়িতে শ্রম বিক্রি করে ১ থেকে দেড়শ টাকা পায় সে। তা দিয়ে কোন রকমে চলে মোমেনা বেগমের সংসার। মোমেনা বেগম জানায়, একদিন মজুরী করতে না গেলে সেদিন তার ঘরে চুলা জ্বলে না। অনাহারে অর্ধাহারে থাকতে হয় তাদের। অভাব-অনটন দুঃথ আর দুর্দশাই মোমেনা বেগমের নিত্য সাথী। ছেলে নুর ইসলামের নামে প্রতিবন্ধী ভাতা’র কার্ড হয়েছে। অপর ছেলে নুর হোসেন এখনো পায়নি প্রতিবন্ধী ভাতা’র কার্ড। স্বামী পরিত্যক্তা মেয়ে আছমা ও মোমেনার ভাগ্যেও জুটেনি কোন সরকারি সাহায্য-সহযোগীতা। মোমেনা বেগম এখন পরিবার-পরিজন নিয়ে মানবেতর জীবন-যাপন করে আসছে। সরকারি সাহায্য-সহযোগীতা পাওয়ার ব্যাপারে মোমেনা বেগমকে জিজ্ঞাসা করা হলে তিনি বলেন, টাকা ছাড়া কোন কার্ড দেয় না জনপ্রতিনিধিরা। মোমেনা বেগম আক্ষেপ করে বলেন আমি তো.. আর টাকা দিতে পারি না। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান বলেন, একজন প্রতিবন্ধীর নামে কার্ডের ব্যবস্থা করা হয়েছে। পর্যায়ক্রমে