| |

কেন্দুয়ায় ৪ পরিবারের বাড়ি ঘরে হামলা, ভাংচুর, লুটপাট মহিলা সহ আতহ-৩ ,১৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

মো: মহিউদ্দিন সরকার : নেত্রকোনার কেন্দুয়ার পল্লীতে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে প্রভাবশালী খায়রুল ইসলাম তার লোকজন নিয়ে প্রতিপক্ষ নিরীহ ৪ পরিবারের উপর হামলা চালিয়ে দোকান ও বসতঘরসহ ১০টি ঘর ব্যাপক ভাংচুর-লুটপাট করেছে। গত শুক্রবার বিকালে উপজেলার বৈশপাট্রা গ্রামে এ ঘটনাটি ঘটেছে। গতকাল রোববার এ ঘটনায় সেলিম মিয়া বাদী হয়ে খায়রুল ইসলামকে প্রধান আসামী করে ১৫ জনের বিরুদ্ধে কেন্দুয়া থানায় মামলা দায়ের করেন। পুলিশ খায়রুল ইসলামকে গ্রেফতার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।
জানা যায়, উপজেলার বৈশপাট্রা গ্রামের সেলিম মিয়া ও তার তিন ভাইয়ের প্রায় ১ একর ৩০শতক পৈত্রিক ভূমি প্রতিবেশি প্রভাবশালী হাবিবুর রহমান ও তার চাচাত ভাই খাইরুলের লোকজন জোরপূর্বক দখল নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ ভোগ দখল করে আসছে। সম্প্রতি এ নিয়ে কথা বললে তাদেরকে মারধর ও বাড়িঘরে হামলা- ভাংচুর করে হাবিবুর ও খায়রুলের লোকজন। জীবিকার তাগিদে সেলিমের দুই ভাই কামরুল ও এমরান স্বপরিবার নিয়ে চলে যায় গাজীপুরে। ঘটনার দিন জুম্মার নামাজের পর সেলিমের সাথে হাবিবুরের কথার কাটাকাটি শুরু হয়। এক পর্যায়ে খায়রুল ও তার লোকজন দেশীয় অ¯্র নিয়ে সেলিমদের বাড়িঘরে হামলা চালিয়ে সেলিমের ৩টি ঘর,কামরুলের ১টি ঘর এমরানের ১টি ঘর ও দুলাল মিয়ার দোকানঘরসহ ৪টি ঘরে ব্যাপক ভাংচুর ও লুটপাট করে। হামলাকারীরা নগদ টাকা ,স্বর্ণালংকার,পরিধানের কাপড়,থালা-বাসুন ,পানির টিওবয়েলসহ দুপুরের রান্নাকরা খাবারগুলোও লুটে নিয়ে যায়।এসময় সেলিম এবং তার ভাই দুলাল স্ত্রী সুলতানা বেগম বাধাঁ দিলে তাদেরকে গুরুতর জখম করে। পরে পুলিশ ও স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে। প্রত্যকদর্শী প্রতিবেশি প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী তানজীলা জানায়,হামলাকারীরা দৌড়ে দৌড়ে জিনিসগুলো নিয়ে গেছে। প্রত্যকদর্শী গ্রামের জাহাঙ্গীর নামে আরেক যুবক জানায়,হামলাকারীদের অত্যাচারে অতিষ্ঠ গ্রামের অনেকেই। শুক্রবার দিন সেলিমদের উপর মাত্রারিক্ত জুলুম করেছে। দুপুরের খাবারগুলো পর্যন্ত লুটে নিয়ে গেছে। সেলিমের ভাই কামরুল কান্নজড়িত কন্ঠে বলেন,আমার বাবা সহজ সরল থাকায় দীর্ঘদিন ধরে তারা আমাদের সম্পদ জোরদখলে ভোগ করিতেছে। কিছু বললেই আমাদের উপর বিভিন্ন ভাবে অত্যাচার-নির্যাতন চালায়।তার ভাইদের উপর হামলা-ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনার প্রধানমন্ত্রীর নিকট দৃষ্টান্তমূলক বিচার দাবী করে আরো বলেন, বিচার না পেলে আমাদের মূখ কাউকে দেখাব না। আমরা আতœহত্যা করে মরে যাব। নিজেদের সম্পদ ভোগ ও স্বাধীন দেশে স্বাধীন ভাবে কেন চলতে পারব না! কি অপরাধ আমাদের প্রশ্ন ও রাখেন তিনি।
কেন্দুয়া থানা ওসি অভিরঞ্জন দেব জানান, এ ঘটনায় ১৫জনকে আসামী করে থানায় মামলা দায়ের হয়েছে এবং একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে অন্য আসামীদের গ্রেফতারের অভিযান চালানো হচ্ছে।