| |

দেওয়ানগঞ্জে বন্য হাতির তান্ডব ॥জমির ফসলী,ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি

এসএম হালিম দুলাল জামালপুর প্রতিনিধি॥ জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ উপজেলার ডাংধরা ইউনিয়নের ভারতীয় সীমান্তবর্তী মাখনেরচর গ্রামে গত কয়েক দিন ধরে বন্য হাতি তান্ডব চালিয়ে আসছে। গত ২৫ জানুয়ারী সোমবার রাত ১০টার দিকে পাশ্ববর্তী দেশ ভারতের মেঘালয় রাজ্যের তুরা জেলার মহেন্দ্রগঞ্জ থানার বালুঘাট এলাকা থেকে প্রায় ৩০/৩৫টি বন্য হাতির পাল সীমান্ত পেরিয়ে দেওয়ানগঞ্জের মাখনেরচর গ্রামে তান্ডব চালায়। স্থানীয় এলাকাবাসিরা জানায়, বন্য হাতির তান্ডবে কমপক্ষে ৩০ জন কৃষকের ৫০ বিঘা জমির ফসল,আমবাগানসহ দুইটি বাড়ির ব্যাপক ক্ষতি সাধন করে।
ক্ষতিগ্রস্থ কৃষক আব্দুস সাত্তার,রাকিবুল ইসলাম, আফসার আলী, শুকুর মিয়া,রহিম,আব্দুর রাজ্জাক, আঃ আজিজ, মজিদ, শহীদুর রহমান,নূরুজ্জামান,আব্দুর রহিম,নূরে আলম, মোজাম্মেল,তাহের মন্সি. মজনু মিয়াসহ ৩০জন কৃষকের ২০ বিঘা সরিষা ও প্রায় ২৭ বিঘা জমির গমের ক্ষেতসহ আশরাফ আলীর ৩ বিঘা মশুর কালাই ডাল, আম বাগানের বেশীরভাগ গাছ বিনষ্ট করে ফেলে।
এলাকার লোকজন ঢাক ঢোল পিটিয়ে,আগুন জ্বালিয়ে হাতির আক্রমন প্রতিহত করার চেষ্টা করলে বন্য হাতির পাল ক্ষিপ্ত হয়ে কৃষক জহুরুল ইসলামের দুইটি বসত ঘর ভেঙ্গে তছনছ করে ফেলে।
ডাংধরা ইউপি সদস্য লুৎফর রহমান জানান, হাতির আক্রমন রোধে গত কয়েক দিন আগে স্থানীয় প্রশাসনের পক্ষ থেকে তাদেরকে চারটি জেনারেটর ও টর্চ লাইট সরবরাহ করা হয়েছে। কিন্তু জ্বালানী তেল,বাতি, বৈদ্যুতিক তার ইত্যাদি সরঞ্জামের অভাবে এগুলো এখন পর্যন্ত ব্যবহার করা যাচ্ছে না।
তবে গ্রামবাসীদের কাছ থেকে চাঁদা তুলে সরঞ্জামগুলো ক্রয়ের ব্যবস্থা করা হয়েছে।
গ্রামগুলোতে রাতে আলোর ব্যবস্থা না থাকায় অন্ধকারের মধ্যে হাতির পাল সহজেই এখানে ঢুকে তান্ডব চালাচ্ছে।
ডাংধরা ইউপির চেয়ারম্যান আব্দুর রশিদ বলেন, বৈদ্যুতি বাতির আলোর ব্যবস্থা থাকলে হাতির পাল গ্রামের ভেতর প্রবেশ করতে ভয় পেত বলে তিনি জানান।
দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো.সাইফুল ইসলাম জানান, গ্রামগুলোতে রাতে বন্য হাতির তান্ডব রোধে চারটি জেনারেটরের ব্যবস্থা করা হয়েছে।