| |

টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে প্রভাসির দুই শিশুপুত্রকে জবাই করে হত্যা ॥ দুই থানার রেশারেশীতে এখনো হয়নি হত্যা মামলা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : এক লাখ টাকা মুক্তিপন না পেয়ে দুই প্রভাসির ১১ বছরের দুই শিশুপুত্রকে অপহরণকারীরা জবাই করে হত্যা করেছে। নিখোঁজের চার দিন পর শুক্রবার রাতে পুলিশ একটি লেবু বাগান থেকে দুই শিশুর লাশ উদ্ধার করেছে। টাঙ্গাইলের মির্জাপুর উপজেলার হাড়িয়া গ্রামে এ চাঞ্চল্যকর হত্যার ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনার দুই দিন পার হলেও দুই থানা পুলিশের মধ্যে রশিটানাটানির ফলে হত্যা মামলা এখন পর্যন্ত নথিবুক্ত হয়নি। নির্মম ভাবে হত্যার শিকার দুই শিশুপত্র হচ্ছে চর চৌহাট গ্রামের আবু বকর মিয়ার ছেলে ইমরান হোসেন (১১) এবং একই গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের ছেলে শাকিল (১০)। তারা দুজনেই বালিয়া ব্র্যাক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্র। শিশু দুটির লাশ দেখার জন্য মির্জাপুর থানায় ভিড় জমিয়েছে উৎসুক জনতা। শনিবার নিহত শাকিলের মাতা জোসনা বেগম এবং ইমরানের মাতা সুরাইয়া বেগম জানায়, গত ২৬ জানুয়ারি মির্জাপুর ও ধামরাবই উপজেলার সীমান্তবর্তী হাড়িয়া স্কুলে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার খেলা দেখতে এসে ঐ শিশুপুত্র নিখোঁজ হয়। পরিবারের ধারনা অপহরনকারীরা খেলার মাঠ থেকে কৌশলে তাদের অপহরণ করে নিয়ে যায়। অপহরণকারীরা মোবাইলে দুই শিশুর পরিবারের কাছে চার লাখ টাকা মুক্তিপন দাবী করে। মুক্তিপনের টাকা দিতে দেরী হওয়ায় অপহরণকারীরা দুই শিশুকে হত্যার পর লাশ হাড়িয়া গ্রামের একটি লেবু বাগানে ফেলে রাখে। গতকাল শুক্রবার স্থানীয় লোকজন শিশু দুটির লাশ দেখে পুলিশকে খবর দয়। পরে পুলিশ লাশ দুটি উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শনিবার টাঙ্গাইল মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে প্রেরন করেছে। এদিকে হত্যাকারীদের অবিলম্বে গ্রেফতার ও দৃষ্টান্ত মুলক শাস্তির দাবী জানিয়েছে পরিবাররের সদস্য ও এলাকাবাসি। মির্জাপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মাইন উদ্দিন বলেন, শিশু দুটি অপহরণ হয়েছিল ধামরাই থানা এলাকায়। আর লাশ উদ্ধার হয়েছে মির্জাপুর উপজেলার ১০০ গজের ভিতরে ধলুটিয়া লেবু বাগান এলাকা থেকে। মামলা হতে হলে ধামরাই থানায় হওয়া উচিত। তবে লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছে।