| |

টাঙ্গাইলে রফিক রাজু ক্যাডেট একাডেমীর ৭ম শ্রেণীর ছাত্র হাসান পারভেজ নিখোঁজ হওয়ার ৪মাস ৭দিন পরও উদ্ধার করতে পারেনি পুলিশ

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি : টাঙ্গাইলে রফিক রাজু ক্যাডেট একাডেমীর আবাসিক ভবন থেকে ৭ম শ্রেণীর ছাত্র হাসান পারভেজ নিখোঁজ হওয়ার ৪মাস ৭দিন পরও পুলিশ উদ্ধার করতে পারেনি। একাডেমীর ব্যবস্থাপনা পরিচালকসহ ৩জনকে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ। হাসান পারভেজের পিতা মাতাকে মামলা তুলে নেয়ার জন্য বিভিন্ন প্রকার হুমকি দিচ্ছে বলে সংবাদ সম্মেলন করে অভিযোগ করা হয়েছে।
সংবাদ সম্মেলনের লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন, নিখোঁজ হাসান পারভেজের পিতা মো. খোরশেদ আলম। তিনি জানান, টাঙ্গাইল পৌর এলাকার হাউজিং এস্টেট মাঠে রফিক রাজু ক্যাডেট একাডেমী আবাসিক ভবনে রেখে আমার ছেলে মো. হাসান পারভেজকে লেখা পড়া করাই। ঐ ভবনের আবাসিক শিক্ষক আল আমিন গত ২ অক্টোবর হাসান পারভেজের মাকে ফোন করে জানান, হাসান পারভেজকে পাওয়া যাচ্ছে না। পরে তাকে বিভিন্ন জায়গায় খোঁজা খুঁজি করার পরও না পেয়ে থানায় জিডি করতে চাইলে আমাদের জিডি করতে না দিয়ে একাডেমী কর্তৃপক্ষই ৩ অক্টোবর টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি জিডি করেন। পরে ছেলে নিখোঁজের খবর পেয়ে সৌদি প্রবাসী হাসান পারভেজের পিতা খোরশেদ আলম দেশে ফিরে আসেন। দেশে এসে তিনি হাসান পারভেজকে বিভিন্ন জায়গায় খুজে বেড়ান। কিন্ত না পেয়ে গত ১৭ জানুয়ারী টাঙ্গাইল মডেল থানায় রফিক রাজু ক্যাডেট একাডেমী ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাইজ উদ্দিন রাজুসহ ৬ জনকে আসামী করে হাসান পারভেজের মা পারভীন বেগম বাদী হয়ে টাঙ্গাইল মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। পরে পুলিশ প্রতিষ্ঠানের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. রাইজ উদ্দিন রাজু, শিক্ষক আল আমিন ও দারোয়ান নজরুল ইসলামকে পুলিশ গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।
এদিকে রফিক রাজু ক্যাডেট একাডেমীর প্রভাবশালীরা মামলা তুলে নেয়ার জন্য নিখোঁজ হাসান পারভেজের পিতামাকে বিভিন্ন প্রকার হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। ছেলেকে হারিয়ে পাগল প্রায় পিতা-মাতা ও আত্মীয় স্বজনের দাবি যে করেই হোক আমাদের ছেলেকে আমাদের কাছে ফিরিয়ে দাও। ছেলে হারানো মা পারভিন বেগমের আহাজারী থামানো যাচ্ছে না। বিদেশ থেকে ছুটে আসা বাবা খোরশেদ আলমও ছেলেকে হারিয় পাগলপ্রায়।