| |

আ.লীগের দুই পক্ষের পাল্টাপাল্টি সমাবেশ আহবান,ধর্মপাশায় ১৪৪ধারা জারি

ধর্মপাশা প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় গতকাল মঙ্গলবার বেলা দুইটায় স্থানীয় দলীয় কার্যালয়ে উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা একই সময়ে পাল্টাপাল্টি সমাবেশ আহবান করায় সংঘর্ষ এড়াতে গতকাল বেলা পৌনে দুইটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যন্ত ধর্মপাশা সদরের প্রধান সড়কে ১৪৪ধারা জারি করে উপজেলা প্রশাসন। উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই কয়েকজন জ্যেষ্ঠ নেতা ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, প্রায় বছর দেড়েক ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা দুই ভাগে বিভক্ত রয়েছেন। স্থানীয় সাংসদ ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মোয়াজ্জেম হোসেন রতন উপজেলা আওয়ামী লীগের একটি অংশের ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস উপজেলা আওয়ামী লীগের অপর অংশটির নেতৃত্ব দিয়ে আসছেন। গত শুক্রবার বিকেলে বিশম্ভপুর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের অনুষ্ঠানে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমানের বক্তব্য নিয়ে ধর্মপাশা উপজেলা আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা পক্ষে বিপক্ষে অবস্থান নেন । আর এ বক্তব্যকে কেন্দ্র করে পক্ষে বিপক্ষে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিবদমান দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা গতকাল বেলা দুইটায় দলীয় কার্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ ডাকে। গতকাল বেলা একটা চল্লিশ মিনিটের সময় সাংসদ সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্রে সজ্জিত হয়ে ধর্মপাশা সদরের পূর্ব বাজার থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। অপরদিকে একই সময়ে ধর্মপাশা সদরের পশ্চিমবাজার থেকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে দলীয় কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। বেলা পৌনে দুইটার দিকে দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা ধর্মপাশা সদরের মধ্যবাজারে মূখোমূখি অবস্থান নিতে দেখে এ উত্তপ্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে সরোজমিনে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্ত ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ নাজমুল হক সেখানে উপস্থিত হয়ে ধর্মপাশা সদর বাজারের প্রধান সড়কে বেলা পৌনে দুইটা থেকে সন্ধ্যা ছয়টা পর্যš ১৪৪ধারা জারির ঘোষণা দেন।
সাংসদ সমর্থিত উপজেলা আওয়ামী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ মুরাদ অভিযোগ করেন, গত শুক্রবার বিকালে পাশ্ববর্তী বিশম্ভরপুর উপজেলায় বঙ্গবন্ধু সৈনিক লীগের অনুষ্ঠানে বক্তৃতা দেওয়ার সময় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম.এ মান্নানকে উদ্দেশ্য করে সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান নানা কটুৃক্তি করেন। আর এরই প্রতিবাদে দলীয় কার্যালয়ে প্রতিবাদ সমাবেশ ডাকা হয়। তিনি দাবি করেন, দলীয় কার্যালয়ে আমরা প্রতিবাদ সমাবেশ শুরু করার পর প্রশাসন ১৪৪ধারা জারি করে।
অপরদিকে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামীম আহমেদ বিলকিস বলেন, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মতিউর রহমান সাহেব আওয়ামী লীগের একজন প্রবীন রাজনীতিবিদ ও বর্ষীয়ান নেতা। তাঁর বিরুদ্ধে উদ্দেশ্য প্রণোদিত অপপ্রচার চালানো দৃষ্টতার সামিল। আর এরই প্রতিবাদে দলীয় কার্যালয়ে প্রতিবাাদ সমাবেশের আয়োজন করি। তিনি দাবি করেন, উপজেলা প্রশাসনের ভ’মিকা ছিল খুবই রহস্য জনক। উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে অপরপক্ষের কিছু সংখ্যক আওয়ামী লীগ নামধারী বিএনপি ও জামায়াতের ক্যাডাররা সেখানে অস্ত্র মজুদ করে রাখার বিষয়টি আমরা মৌখিকভাবে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও ওসি সাহেবকে অবহিত করলেও তাঁরা রহ¯্যজনক কোনো ব্যবস্থা নেননি।
ধর্মপাশা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.গোলাম কিবরিযা বলেন, দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা মুখোমূখি অবস্থান নেওয়ায় উত্তপ্ত পরিস্থিতি সামাল দিতে ১৪৪ধারা জারি করা হয়। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ নাজমুল হক বলেন, আওয়ামী লীগের দুই পক্ষের নেতাকর্মীরা মূখোমূখি অবস্থান নেওয়ায় জনগণের জান মালের নিরাপত্তা ও সংঘর্ষ এড়াতে ধর্মপাশা সদর বাজারের প্রধান সড়কে মঙ্গলবার বেলা পৌনে দুইটা থেকে সন্ধা ছয়টা পর্যন্ত ১৪৪ধারা জারি করা হয়েছে।