| |

ভালুকায় শিশু কন্যাকে হত্যার পর পিতার আত্মহত্যা

নিজস্ব সংবাদদাতা ঃ ভালুকায় রাবেয়া আক্তার নামে ১৫ মাসের কন্যাশিশুকে ছুরি দিয়ে গলাকেটে হত্যার পর ওই ছুরি দিয়েই নিজ বুকে আঘাত করে ও বিষপানে আত্মহত্যা করেছে জামিল হোসেন (৪০) নামে এক পাষন্ড বাবা। ঘটনাটি ঘটেছে মঙ্গলবার ভোরে উপজেলার আঙ্গারগাড়া বড়চালা বেলাপাগলামোড় এলাকায়।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, উপজেলার আঙ্গারগাড়া বড়চালা বেলাপাগলা এলাকার নূর মোহাম্মদের ছেলে ভ্যানচালক জামিল হোসেন স্ত্রী সাবিনা আক্তার (৩০), দুই ছেলে সাখাওয়াত হোসেন (১১), শাহ্পরান (৪) ও শিশুকন্যা রাবেয়াকে নিয়ে জীবন যাপন করে আসছিল এবং বেশ ঋণগ্রস্ত ছিলেন।
এলাকাবাসি জানান, জামিল হোসেন দেওয়ানবাগ দরবার শরীফের একজন আশেকান (ভক্ত) এবং বাড়ির পিছনে আলাদা একটি ঘর তৈরী করে দরগাশরীফের সামিয়ানা টানিয়ে তাতে ফজরের নামাজের পর প্রতিদিনই তালিম করতেন। মঙ্গলবার ফজরের নামাজের পর জামিল হোসেন তার শিশুকন্যা রাবেয়াকে নিয়ে বাড়ির পাশে একটি দোকানে যান এবং রাবেয়ার জন্য কিছু চকলেট কিনে আনেন । পরে তালিমের ঘরে গিয়ে ছুরি দিয়ে রাবেয়াকে জবাই করে হত্যা করে । শিশু কন্যাকে হত্যার পর ওই ছুরি দিয়েই নিজের বুকে আঘাত করে এবং বিষ পান করে । ঘটনাটি টের পেয়ে স্ত্রী সাবিনা আক্তার ও বাড়ির লোকজন মুমুর্ষ অবস্থায় জামিলকে ভালুকা হাসপাতালে আনার পথে সে মারা যায় ।
জামিলের পিতা নুর মোহাম্মদ জানান, আমার ছেলে স্থানীয় এনজিও থেকে ঋন নিয়েছিল । ঋন পরিশোধ নিয়ে সে কিছুদিন যাবৎ মানসিকভাবে অস্থির ছিল ।
ভালুকা মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ বলেন, নিহতের স্ত্রীর সাথে কথা বলে জানা যায়, জামিলের সাথে কারও কোন বিরোধ ছিল না। প্রাথমিক ভাবে মনে হচ্ছে নিজে আতœহত্যা করার আগে মেয়েকে হত্যা করেছেন। লাশ ময়নাতদন্ত করা হবে। আর পুরো বিষয়টিতে কোন অপরাধ জড়িত কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে।