| |

গৌরীপুরে ইউপি চেয়ারম্যানকে কুপিয়ে জখম ॥ দু’ভাই-পুত্রসহ ৬জনের নামে মামলা

গৌরীপুর প্রতিনিধি ঃ ময়মনসিংহের গৌরীপুর উপজেলার সহনাটী ইউনিয়নের আওয়ামী লীগ নেতা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. দুলাল আহাম্মেদ (৫০) কে শনিবার (২৭ ফেব্রুয়ারি) ভোরে দুর্বৃত্ত্বরা উপযুপুরি কুপিয়ে গুরুত্বর জখম করে। কুড়ালের কুপে মারাত্মকভাবে আহত চেয়ারম্যান ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে রক্তমাখা কুড়াল ও বিছানাপত্র উদ্ধার করে।
মো. দুলাল আহাম্মেদ ৩১মার্চ অনুষ্ঠিতব্য ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনেও সম্ভাব্য চেয়ারম্যান প্রার্থী হিসাবে প্রচার-প্রচারণা চালিয়ে যাচ্ছেন। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসাবে নৌকা প্রতীক নিয়েও চলছে তোড়জোড়। তৃণমূলের নেতাকর্মী ও অবহেলিত ভোটারদের জনপ্রিয় ও স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের এলজিএসপি প্রকল্প বাস্তবায়নে উপজেলায় সেরা চেয়ারম্যানও নির্বাচিত হন।
দ্বিতীয় স্ত্রী সুরমীন্নাহার সুমি (৪০) বাদি হয়ে গৌরীপুর থানা একটি মামলা দায়ের করেন। তিনি জানান, তার স্বামী দুলাল আহাম্মেদকে হত্যার উদ্দেশ্যে তার দু’দেবর মো. কাজল মিয়া (২৮), মো. রবিউল করিম কাঞ্চন (৩০), সৎপুত্র মো. উজ্জল মিয়া (২৭)সহ অজ্ঞাতনামা ২/৩জন দা, কুড়াল দিয়ে শনিবার ভোরে হত্যার চেষ্টা চালায়। উপুর্যুপরি কুপিয়ে গুরুত্বর আহত করে। অপরদিকে প্রচার রয়েছে, দীর্ঘদিন যাবত সুরমীন্নাহার সুমির উপর চেয়ারম্যানের চালানো উপযুপুরি নির্যাতনের প্রতিশোধ ও ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নিজেই চেয়ারম্যান প্রার্থী হওয়ার মনোবাসনা পূরণ করতে স্ত্রীই এ হামলা চালায়। এ রির্পোট পাঠানো পর্যন্ত ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ইউপি চেয়ারম্যানের জ্ঞান ফিরেনি। হামলার সঙ্গে দ্বিতীয় স্ত্রী জড়িত বিষয়টি সন্দেহজনক এব্যাপারে তদন্ত চলছে জানিয়ে গৌরীপুর থানার অফিসার ইনচার্জ মো. আখতার মোরশেদ জানান, তার দ্বিতীয় স্ত্রীর একটি অভিযোগ দিয়েছে। ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে। চেয়ারম্যানের জ্ঞান ফিরলে ও তদন্তে হামলার প্রকৃত রহস্য বেড়িয়ে আসবে।